বৃহস্পতিবার ২১ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

যৌন হয়রানির অভিযোগে সিনেটর ফ্রাঙ্কেনের পদত্যাগ

৮ ডিসেম্বর, বিবিসি : একের পর এক যৌন হয়রানির অভিযোগের মুখে পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর ডেমোক্রেট নেতা আল ফ্রাঙ্কেন।

তিনি ‘শিগগিরই’ আনুষ্ঠানিক পদত্যাগপত্র জমা দেবেন বলেও জানিয়েছেন।

গত মাসের মাঝামাঝিতে ফ্রাঙ্কেনের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন রেডিও উপস্থাপক লিয়েন টুয়েডেন। লস অ্যাঞ্জেলস স্টেশন কেএবিসির ওয়েবসাইটে লিয়েন বলেন, কুয়েতে এক অনুষ্ঠানের আগে ফ্রাঙ্কেন তাকে জোর করে চুমু খেয়েছিলেন। ২০০৬ সালের ডিসেম্বরে মধ্যপ্রাচ্যে থাকা মার্কিন সৈন্যদের বিনোদন দিতে যে দল পাঠানো হয় তার সদস্য ছিলেন লিয়েন ও ফ্রাঙ্কেন।

ফ্রাঙ্কেন তখনও রাজনীতিতে আসেননি ছিলেন কৌতুক অভিনেতা।

ট্যুর থেকে ফেরার পথে সামরিক বাহিনীর বিমানে ঘুমন্ত অবস্থায় ফ্রাঙ্কেন তার স্তনেও হাত দেন বলে অভিযোগ লিয়েনের। এরকম একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখা যায়। যেখানে ফ্রাঙ্কেনকে বোকা বোকা ভাব নিয়ে ক্যামেরার দিকে তাকানো অবস্থায় লিয়েনের স্তনে হাত দিতে দেখা যাচ্ছে; সামরিক পোশাক পরা লিয়েনের চোখ দুটো তখন বোজা।

লিয়েনের অভিযোগের পর তার কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন ফ্রাঙ্কেন।

কিন্তু তার বিরুদ্ধে নতুন করে যৌন হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেলে বুধবার প্রভাবশালী ডেমোক্রেট সদস্যরা ফ্রাঙ্কেনকে পদত্যাগের জন্য চাপ দেন।

বিবিসি জানায়, মিনেসোটার এই সিনেটরকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানান তার দলেরই ৩০ সিনেটর।

এর পরেই সিনেটে দেওয়া বক্তৃতায় ফ্রাঙ্কেনের পদ ছাড়ার ঘোষণা আসে। 

সিনেট ফ্লোর থেকে দেওয়া ঘোষণায় তিনি বলেন, “আমি গর্বিত, কেননা সিনেটে থাকাকালীন সময়ে নারীদের সেরা বানানোর ব্যাপারে আমি আমার ক্ষমতা ব্যবহার করেছি।

“পদ ছেড়ে দিলেও কণ্ঠ ছাড়ছি না,” পদত্যাগের ঘোষণায় আও বলেন ফ্রাঙ্কেন। ফ্রাঙ্কেন তার বিরুদ্ধে আসা ‘সব অভিযোগ সত্য নয়’ দাবি করলেও ‘নারীদের কথা শোনা এবং তাদের অভিজ্ঞতাগুলোকে গুরুত্ব সহকারে নেওয়া উচিত’ বলেও মন্তব্য করেন। নারীর প্রতি অশালীন উক্তি করে সমালোচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং যৌন হয়রানির ধারাবাহিক অভিযোগের মুখেও সিনেট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির সমর্থন পাওয়া রয় মুরের কথাও ফ্রাঙ্কেন তার বক্তৃতায় উল্লেখ করেন।

“সবার মতো আমিও অদ্ভূত কিছু বিষয়ে বিচলিত হচ্ছি। যেমন আমি এখানে পদত্যাগ করছি, অন্যদিকে নিজের যৌন নির্যাতনের ইতিহাস নিয়ে ভিডিও টেপে বাহাদুরি দেখানো এক ব্যক্তি এখনও ওভাল অফিসে বসে আছেন; তরুণীদের ধারাবাহিকভাবে নির্যাতন করা আরেকজন দলের পূর্ণ সমর্থন নিয়ে সিনেট নির্বাচনের প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন।”

পদত্যাগের ঘোষণা দেয়ার পর ডেমোক্রেট দলের অনেক সিনেট সদস্যই ফ্রাঙ্কেনকে জড়িয়ে ধরেন বলে বিবিসি জানিয়েছে। মিনেসোটার সিনেটর এমি ক্লোবুচার ফেইসবুকে দেওয়া পোস্টে ফ্রাঙ্কেনকে ধন্যবাদ জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ