বুধবার ২০ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

ছুটির দিনে মেলায় বিনিয়োগকারীদের উপচে পড়া ভিড়

স্টাফ রিপোর্টার: ছুটির দিনে ক্যাপিট্যাল মার্কেট এক্সপোতে বিনিয়োগকারিদের উপচে পড়া ভিড়। দ্বিতীয় দিনে বিনিয়োগকারী-দর্শনার্থীদের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ্য করা  গেছে। এ মেলা দেখে সারা দেশে মানুষ বিনিয়োগে উৎসাহিত হবে।
 গতকাল শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ার সকাল ১০টা থেকেই মেলা প্রাঙ্গণে ভিড় করছেন দর্শনার্থী ও বিনিয়োগকারীরা।
রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা ভবনে গত বৃহস্পতিবার শুরু হয় বাংলাদেশ ক্যাপিটাল মার্কেট এক্সপো-২০১৭। গতকাল শুক্রবার বাংলাদেশ ক্যাপিটাল মার্কেট এক্সপো দ্বিতীয় দিন। ৩ দিনব্যাপী এ এক্সপো শেষ হবে আজ শনিবার।
 মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকেই জমে উঠতে শুরু করে ক্যাপিটাল মার্কেট এক্সপো-২০১৭। ছুটির দিন হওয়ায় বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠতে শুরু করে মেলা প্রাঙ্গণ।
ক্যাপিটাল মার্কেট এক্সপো-২০১৭তে কথা হয় উত্তরা থেকে আসা মানিক মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান, প্রতিবছর তিনি এই মেলায় আসেন। এবারো পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এসেছেন। উদ্দেশ্য শেয়ার বাজার সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা নেওয়া।
তিনি বলেন, বিনিয়োগের লেনদেনের সময় আমাদের কাছ থেকে ৫ শতাংশ করে চার্জ কেটে নেওয়া হয়। চার্জের এই অংশটা কোনো কোম্পানিতে কম কাটা হয় কিনা, মূলত সেই বিষয়টা সম্পর্কে জানার জন্য আমি মেলায় এসেছি। এছাড়া এখানে এসে এসএমই বিনিয়োগ সম্পর্কেও বিস্তারিত জানতে পারলাম।
পল্টন থানার বাসিন্দা এনায়েত উল্লাহ জানান, মেলায় আসার একমাত্র উদ্দেশ্য একসঙ্গে অনেক কোম্পানিকে পাওয়া যায়। যার ফলে যারা বিনিয়োগকারি রয়েছে তাদের জন্য এটা একটা ভালো প্লাটফর্ম। এছাড়া মেলায় বিভিন্ন অফার থাকে যা সাধারণত অন্য কোথাও পাওয়া যায় না। বিশেষ করে বিভিন্ন অফার।
তিনি বলেন, পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত সকল কোম্পানিকে এই প্লাটফর্মের আওতায় আনতে পারলে অনেক ভালো হতো। তবে প্রতি বছরই এ ধরণের মেলার আয়োজন করা দরকার।
সরকারি চাকরিজীবী হামিদ হোসেন বলেন, পত্রিকায় শেয়ারবাজার মেলার বিজ্ঞাপন দেখে এখানে মূলত আসা। বিশেষ করে ফ্রি বিও একাউন্ট খোলা যায় এ মেলায় তাই আগ্রহটা একটু বেশিই বলতে পারেন। এছাড়া মেলায় অনেক কোম্পানিকে একসঙ্গে পাওয়া যাবে জেনে এখানে এসেছি।
 বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মিনার খান বলেন, শেয়ারবাজার সম্পর্কে আমার তেমন ভালো ধারণা ছিল না। তবে এই মেলায় এসে অনেক কিছু জানতে ও শিখতে পেরেছি। এ ধরণের মেলা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে আমাদের মতো ছাত্রদের উৎসাহিত করবে।
এক্সপোতে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), স্টক এক্সচেঞ্জ, সিডিবিএল, শীর্ষ ব্রোকারহাউজ, মার্চেন্ট ব্যাংক, অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি, তালিকাভুক্ত কোম্পানিসহ প্রায় ৪০ টি স্টল তাদের সেবা-পণ্য প্রদর্শনের আয়োজন শুরু করেছে।
 মেলার আয়োজক কর্তৃপক্ষ জানান, এক্সপো-২০১৭তে প্রবেশের জন্য কোনো টিকেট লাগবে না। এছাড়া প্রবেশে কুপনের র‌্যাফেল ড্রতে মোটরসাইকেল, মোবাইলসহ মূল্যবান সব পুরস্কার জেতার সুযোগ রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ