বৃহস্পতিবার ২৬ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

চরম দুর্ভোগে চাঁদখালীর কয়েকটি এলাকার মানুষ

খুলনা অফিস: খুলনার পাইকগাছায় জরাজীর্ণ হয়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে সাহাপাড়া বদ্ধ নদীর উপর পুরাতন ব্রিজটি। ব্রিজের বেশির ভাগ অংশ ভেঙে যাওয়ায় এবং ব্রিজের সংযোগ সড়ক না থাকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের উপর দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে এলাকাবাসীকে। অবহেলিত এ এলাকার যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম সাহাপাড়া নদীর উপর নতুন একটি ব্রিজ ও সংযোগ সড়ক নির্মাণের দাবী জানিয়েছে ভূক্তভোগী এলাকাবাসী।
উপজেলার অবহেলিত ইউনিয়নগুলোর মধ্যে চাঁদখালী অন্যতম। আর চাঁদখালীর অবহেলিত এলাকার মধ্যে ওড়াবুনিয়া অন্যতম। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন এলাকার নাম ওড়াবুনিয়া। এ এলাকার মানুষের যাতায়াতের নেই কোন যেমন রাস্তা, নেই স্বাস্থ্য সেবার কোন প্রতিষ্ঠান, আবার নেই কোন পানি নিস্কাশনের সুব্যবস্থা। এলাকাবাসীর অভিযোগ স্বাধীনতার পর অত্র এলাকায় এখনও উন্নয়নের কোন ছোঁয়া স্পর্শ করেনি। পানি নিস্কাশনের সুব্যবস্থা না থাকায় বছরের বেশির ভাগ সময় সমস্ত এলাকা থাকে প্লাবিত। যাতায়াতের তেমন কোন রাস্তা না থাকায় এলাকায় কোন যানবাহন চলাচল করে না। অনুরূপভাবে অত্র এলাকার একমাত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ওড়াবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি গত কয়েক বছর যাবত পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হলেও নতুন কোন ভবন এখনও নির্মাণ করা হয়নি। সব মিলিয়েই চরম দুর্ভোগের মধ্যে বসবাস করছেন উন্নয়নবঞ্চিত ওড়াবুনিয়ার  শতশত পরিবার। এলাকাবাসীর নানা দুর্ভোগের মধ্যে অন্যতম দুর্ভোগ হচ্ছে সাহাপাড়া বদ্ধ নদীর উপর দীর্ঘদিনের পুরাতন ব্রিজটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়া। পুরাতন ব্রিজটি গত কয়েক বছর পূর্বে ব্রিজের ছাদসহ বেশিরভাগ অংশ ভেঙে যায়। পরবর্তীতে এলাকাবাসী ব্রিজের উপর কাঠ দিয়ে কোন রকমে পারাপার হয়। ব্রিজটি কোন রকমে পার হলেও ব্রিজের সামনে কয়েক মিটার রাস্তা না থাকায় বাঁশের উপর দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হয় এলাকাবাসীকে। উল্লেখ্য, কয়রা-পাইকগাছা সড়কের কৃষ্ণনগর হতে গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক মৌখালী-শিববাটী সড়কে এসে মিশেছে। সড়কের মধ্যবর্তী সাহাপাড়া বদ্ধ নদীর উপর ব্রিজটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় যাতায়াতে চাঁদখালী, বিষ্ণুপুর, কৃষ্ণনগর, ওড়াবুনিয়া ও কলমিবুনিয়া সহ অত্র এলাকার হাজার হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে জীবনের ঝুকি নিয়ে যাতায়াত করছে। ওড়াবুনিয়া গ্রামের সুন্দরী মন্ডল জানান, এলাকার জনপ্রতিনিধিরা ভোটের সময় আসলে আমাদের খোঁজ নেয়। এরপরে আমরা কিভাবে জীবন-যাপন করছি তার খোঁজ নেয়ার কেউ থাকে না। ৭০ বছরের বৃদ্ধ কৃষ্ণপদ ম-ল জানান, স্বাধীনতার পর আমাদের এ এলাকায় এখনও তেমন কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। এলাকাবাসীর যাতায়াতের একমাত্র সাহাপাড়া ব্রিজটি অনেক আগেই নষ্ট হয়ে গেছে। জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতিদিন আমরা যাতায়াত করছি। কিন্তু ব্রিজটি নির্মাণের ব্যাপারে কারো কোন মাথাব্যথা নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ