বৃহস্পতিবার ২৬ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

সিরাজগঞ্জে হেমন্ত মেলার নামে অবাধে চলছে যাত্রা-জুয়া হাউজি

তাড়াশ: জুয়া হাউজির আসর

শাহজাহান তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) থেকে: সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার সাহেবগঞ্জ বাজারে হেমন্ত মেলার নামে চালানো হচ্ছে অবাধে যাত্রা এবং লাখ লাখ টাকার জুয়া ও হাউজি খেলা। এদিকে মেলাকে ঘিরে এলাকায় চুরি, ছিনতাইসহ আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন এলাকাবাসী। অপরদিকে আসন্ন প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষা নিয়ে এলাকার সকল শ্রেণীর মানুষের মধ্যে চরম উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।
ঐ এলাকার মনজেদ আলী মজনু নামের এক ব্যক্তি জানান, ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের কোল ঘেঁষে সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার সাহেবগঞ্জ বাজারে গত ২২ নভেম্বর-২০১৭ইং তারিখে হেমন্ত মেলা উদ্বোধন করা হয়। প্রায় তিনমাসের জন্য বি. বাড়িয়া এলাকার বাসিন্দা বেলাল হোসেন ও বগুড়া জেলার ধুনটের বাসিন্দা মাসুদ চৌধুরীর নেতৃত্বে ও সাহেবগঞ্জ এলাকার প্রভাবশালীদের সমন্বয়ে এ মেলা শুরু হয়। হেমন্ত মেলায় কৃষিজ পণ্যের কোনো স্টল নেই। এমনকি মেলায় চিরায়ত গ্রামীণ সংস্কৃতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কোনো খেলাধুলা ও বিনোদনের ব্যবস্থা নেই। মেলায় চলছে শুধু ডাব্বা জুয়া, ওয়ানটেন জুয়া, ৫ হাজার চেয়ার বিশিষ্ট হাউজি খেলা এবং ২ হাজার আসন বিশিষ্ট বিশাল প্যান্ডেল জুড়ে যাত্রার নামে অশ্লীল নাচ-গান ও নৃত্য।
এলাকার উঠতি বয়সী যুবকেরা বিপদগামী হয়ে পড়বে। ফলে তাদেরকে নিয়ে উদ্বিগ্ন আর উৎকণ্ঠায় রয়েছে অভিভাবকেরা। শুধু তাই নয়, জেএসসি, জেডিসি ও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে কিভাবে এ মেলার অনুমোদন পেলো এবং পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে কিভাবে মেলাটি উদ্বোধন করা হলো তা নিয়েও চলছে এলাকায় নানা আলোচনা-সমালোচনা।
এ বিষয়ে হেমন্ত মেলার মালিক মোঃ বেলাল হোসেন বার্তা সংস্থা পিপ’কে জানান, অনুমোদন নিয়েই মেলাটি পরিচালনা করা হচ্ছে এবং অনুমোদন নিয়েই যাত্রা-জুয়া ও গান চালানো হচ্ছে।
রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইকবাল আখতার দেনিক সংগ্রাম‘কে জানান, মেলাটির অনুমোদন আছে। তবে যাত্রা-জুয়া ও হাউজির বিষয়ে আমাদের জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ