সোমবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

ঝালকাঠিতে আদালতের নির্দেশ পালনে ওসিদের ধীরে চল প্রবণতা

ঝালকাঠি সংবাদদাতা: ঝালকাঠি জেলার চার থানার ওসিদের বিরুদ্ধে আদালতের আদেশ পালনে অনিহা এবং বিলম্ব করার অভিযোগ দীর্ঘ দিনের। রোববার ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আনুষ্ঠানিকভাবে এ অভিযোগ করেন একটি নালিশী মামলার বাদী ঝুমুর বেগম। তার পক্ষে আদালতে শুনানি করেন লিগ্যাল এইডের প্যানেল আইনজীবী মানিক আচার্য্য। অভিযোগে প্রকাশ, ঝালকাঠির চারটি আমলী আদালত এবং জেলা ও দায়রা জজ আদালতে প্রতিদিন ২০/২৫ টি নালিশী মামলা দায়ের করা হয়। এর মধ্যে প্রতিদিন ৪/৫টি মামলায় আদালতের বিচারকবৃন্দ থানার অফিসার ইনচার্জদের অভিযোগ ফার্স্ট ইনফরমেশন রিপোর্ট (এফআইআর) হিসেবে রেকর্ড করার আদেশ দেন। কিন্তু কিছু কিছু এফআইআরের আদেশ কোন কোন থানার অফিসার ইনচার্জরা প্রতিপালন করতে কালক্ষেপন করে থাকেন। এমনও দেখা যায় যে আদালতের একটি আদেশ থানায় পৌঁছার পর এক থেকে দুইমাস পার হলেও এজাহার লিপিবদ্ধ করা হয় না। এসব ঘটনার শিকার ভুক্তভোগীরা পরবর্তীতে আবার আদালতের শরণাপন্ন হলে আদালত পুনরায় সময় বেঁধে দিয়ে ওসিদের প্রতি আদেশ দিয়ে থাকেন। অনেক সময় আদালত ২৪ অথবা ৪৮ ঘন্টার সময় বেঁধে দেন। গত ১৪ সেপ্টেম্বর ঝালকাঠি নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালে ফরিদপুরের পিকুল শেখ তার একাদশ শ্রেণিতে পড়–য়া মেয়েকে নলছিটি শহর থেকে অপহরণ করা হয়েছে মর্মে একটি নালিশী অভিযোগ দায়ের করেন। আদালতের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো. ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক নলছিটি থানার ওসিকে অভিযোগ এজাহার হিসেবে লিপিবদ্ধ করার আদেশ দেন। ৪০ দিন পর গত ২৪ অক্টোবর নলছিটি থানায় পিকুল শেখের অভিযোগ এজাহার হিসেবে লিপিবদ্ধ হয়। গত ১ নভেম্বর ঝালকাঠি শহরের নতুন কলেজ সড়কের ঝুমুর বেগম সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় আরিফ হোসেন, বেবী আক্তার ও শাহনাজ বেগমের বিরুদ্ধে একটি নালিশী অভিযোগ দায়ের করেন। আদালতের ওই দিনের বিচারক জাহেদ আহমেদ ঝালকাঠি থানার ওসিকে অভিযোগ এফআইআর হিসেবে রেকর্ডের আদেশ দেন। গত ৫ নভেম্বর আদালতের আদেশ সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে থানায় পাঠানো হয়। ২৬ নভেম্বর সকাল ১০ টা পর্যন্ত ওই অভিযোগ মামলা হিসেবে রেকর্ড না হওয়ায় ওই দিনই বাদী ঝুমুর বেগম আদালতে একটি আবেদন করেন। আদালত আবেদন গ্রহণ করে বিচারক সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেগম রুবাইয়া আমেনা তাৎক্ষনিক ঝালকাঠি থানার ওসিকে মামলা রেকর্ড করে আদালতকে অবহিত করার আদেশ দেন।

ঝালকাঠি আইনজীবী সমিতির সিনিয়র আইনজীবী মল্লিক মুহা: নাসির উদ্দীন কবির বলেন, ফৌজদারী কার্যবিধির ১৫৬(৩) ধারা অনুযায়ী আদালতের আদেশ থানায় পৌছার সাথে সাথে ওসি মামলা রেকর্ড করতে আইনত বাধ্য। এখানে কালক্ষেপনের কোন সুযোগ নাই। তবে আদেশ কোন তারিখে আদালত থেকে পাঠনো হয়েছে এবং থানায় কোন তারিখে আদেশ গৃহীত হয়েছে তা বিবেচনায় রাখতে হবে। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে থানার দায়িত্বশীলরা মামলার পক্ষদের কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা গ্রহণের জন্য কালক্ষেপন করে থাকেন। ঝালকাঠি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. তাজুল ইসলাম মোবাইল ফোনে বলেন, ঝুমুর বেগমের অভিযোগ থানায় পৌছেছে, তবে নালিশী অভিযোগে মামলার ঘটনাস্থল স্বরুপকাঠি উল্লেখ করায় জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। পিও জটিলতার কারণে মামলা রেকর্ড করা হয়নি। জটিলতা নিরসনের জন্য আদালতের শরণাপন্ন হতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ