সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

কাজিপুর সরকারি মনসুর আলী কলেজে শিক্ষক সংকট ॥ লেখাপড়া ব্যাহত

কাজিপুর (সিরাজগঞ্জ): কাজিপুর সরকারি মনসুর আলী কলেজের গাছপালা শোভিত ভবন

কাজিপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে আবদুল মজিদ: সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর সরকারি মনসুর আলী কলেজে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষক সংকটের দরুন ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়ার মারাত্মকভাবে বিঘœ ঘটছে। এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে বার বার অবহিত করার পরও অদ্যাবধিও কোনই ফলোদয় হচ্ছে না। জানা গেছে, কলেজে ৩৮টি পদ শূন্য রয়েছে। শূন্য পদগুলো হচ্ছে বাংলায় ১ জন, ইংরেজিতে ১ জন, অর্থনীতিতে ১ জন, রাষ্ট্রবিজ্ঞানে ১ জন, ইতিহাসে ২ জন, হিসাব বিজ্ঞানে ১ জন, ব্যবস্থাপনায় ১ জন, পদার্থ বিদ্যায় ১ জন, প্রাণিবিদ্যায় ২ জন, উদ্ভিদ বিদ্যায় ২ জন। এছাড়া ৩য় শ্রেণীর কর্মচারী শূন্যপদ ২ জন ও ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীর ৪টি পদ শূন্য রয়েছে। শিক্ষকের পদগুলো শূন্য থাকার কারণে কলেজের আড়াই হাজার ছাত্র-ছাত্রীর লেখাপড়ার ব্যাঘাত ঘটছে। ২০০৯-১০ সালে ৬টি বিষয়ে অনার্স কোর্স খোলা হয়। বর্তমানে ৬৯০ জন ছাত্র-ছাত্রী অনার্সে ভর্তি হয়েছে।
কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. রেজাউল করিম জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের ব্যাপক চাহিদার প্রেক্ষিতে আরও কমপক্ষে ৬/৭টি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু করা দরকার। কয়েকটি বিষয়ে মাস্টার্স পূর্বভাগ ও মাস্টার্স কোর্স খোলা দরকার। শিক্ষক স্বল্পতা দূরীকরণে এবং শিক্ষার গুণগতমান বৃদ্ধি লক্ষ্যে বিভিন্ন বিষয়ে ৪৮টি নতুন সৃজনের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া কলেজে প্রশাসনিক ভবন, একাডেমিক ভবন, শিক্ষক ডরমেটরি, ছাত্র হোস্টেল ও ছাত্রী হোস্টেল দরকার। ১৯৬৯ সালে কলেজটি শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলীর নামে প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৮ সালে এরশাদ সরকারের আমলে কলেজটি সরকারিকরণ করা হয়। ২০০০ সাল পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটি সুনামের সাথে পরিচালিত হয়ে আসলেও বিভিন্ন কারণে ২০১৪ সালে ছন্দপতন ঘটে। এম মনসুর আলীর সুযোগ্য পুত্র স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ও তার দৌহিত্র প্রকৌশলী তানভীর শাকিল (জয়) বর্তমান কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. রেজাউল করিমের আন্তরিক প্রচেষ্টায় কলেজটি প্রাণ ফিরে পাচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ