শুক্রবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

দক্ষিণ কোরিয়ার বিশ্ব রেকর্ড রোমানের ব্যক্তিগত সেরা স্কোর

স্পোর্টস রিপোর্টার: এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপের র‌্যাংকিং রাউন্ডে বিশ্বরেকর্ড গড়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। অপরদিকে স্বাগতিক বাংলাদেশ দলের আর্চার রোমান সানা ব্যাক্তিগত সেরা স্কোর করেছেন। গতকাল রোববার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্টিত মেয়েদের দলগত কম্পাউন্ড ইভেন্টের র‌্যাংকিং রাউন্ডে ২ হাজার ১০৮ স্কোর করে বিশ্বরেকর্ড গড়েন দক্ষিণ কোরিয়ার তিন আর্চার চই বোমিন, সো চায়েওন এবং সং-ইয়ুন সু। এর আগে ৫০ মিটার রাউন্ডে রেকর্ডটি ছিল যুক্তরাষ্ট্রের। ২০১১ সালে সাংহাইতে হওয়া আর্চারি ওয়ার্ল্ড কাপ স্টেজ-৪ এ জেমি ভ্যান নাটা, ক্রিস্টি কলিন ও ডেয়ান ওয়াটসন ২ হাজার ৯৫ স্কোর গড়েছিলেন।  ছেলেদের রিকার্ভের র‌্যাংকিং রাউন্ডে ব্যক্তিগত সেরা ৬৬৬ স্কোর গড়েন স্বাগতিক দলের রোমান সানা। গত ইসলামিক সলিডারিটি চ্যাম্পিয়নশিপে গড়া ৬৬৩ স্কোর ছিল বাংলাদেশের এই তীরন্দাজের আগের সেরা। ব্যক্তিগত সেরা স্কোর গড়ে দারুণ খুশি রোমান। র‌্যাংকিং রাউন্ডের পারফরম্যান্স ধরে রাখতে পারলে রিকার্ভের ব্যক্তিগত ইভেন্টের কোয়ার্টার-ফাইনালে খেলার লক্ষ্য পূরণ হবে বলেও মনে করেন স্বাগতিক দলের এই আর্চার। প্রতিক্রিয়ায় তিনি বললেন,“শুরুটা ভাল হয়নি। একটু নার্ভাস ছিলাম,তাই প্রথম তিনটা তীর খারাপ মেরেছি। তখন কোচরা এসে ভুলটা ধরিয়ে দিলেন। তাতে করে নিজের স্বাভাবিক শুটিংয়ে ফিরে এলাম। যে স্কোর করার কথা তার থেকেও ভাল করেছি। প্রত্যাশার থেকে বেশি স্কোর করতে পারায় খুব আনন্দ লাগছে। ইন্ডিভিজুয়াল রাউন্ডে এই স্কোরের ধারাবাহিকতা যদি রাখতে পারি, তাহলে লক্ষ্য পৌঁছাতে পারবো। আমার লক্ষ্য কোয়ার্টার ফাইনাল।”

 ছেলেদের দলগত রিকার্ভে ১ হাজার ৯৫৪ স্কোর নিয়ে ১৯ দলের মধ্যে নবম হয়েছে বাংলাদেশ। দলের হয়ে খেলা তামিমুল ইসলাম ৬৫০ ও হাকিম আহমেদ রুবেল ৬৩৮ স্কোর গড়েন। তামিমুল ৩১তম ও রুবেল ৪১তম হয়েছেন। ব্যক্তিগত সেরা স্কোর গড়া রোমান ৭৯ প্রতিযোগীর মধ্যে হয়েছেন ১১তম। ছেলেদের দলগত কম্পাউন্ডে ২ হাজার ২০ স্কোর নিয়ে ১০ দলের মধ্যে অষ্টম হয়েছে বাংলাদেশ। দলের হয়ে খেলেছেন আবুল কাশেম মামুন (৬৮২ স্কোর, ২৩তম), নাজমুল হুদা (৬৭১, ৩২তম) এবং মিলন মোল্লা (৬৬৭, ৩৫তম)।

 মেয়েদের দলগত কম্পাউন্ডের র‌্যাংকিং রাউন্ডে ২০ হাজার ২২ স্কোর নিয়ে সাত দলের মধ্যে ষষ্ঠ হয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। দলের হয়ে খেলা রোকসানা আক্তার (৬৮৪ স্কোর, ১৩তম), সুস্মিতা বণিক (৮৭৪, ২১তম) ও বন্যা আক্তার (৬৬৪, ২৬তম) গড়েন। রাদিয়া আক্তার শাপলা (৫৮৩ স্কোর, ৪৮তম), নাসরিন আক্তার (৫৮২, ৪৯তম) ও রাবেয়া খাতুনের (৫৭৬, ৫১তম) আলো ছড়াতে পারেননি। দলগত রিকার্ভে ১ হাজার ৭৪১ স্কোর নিয়ে ১৪ দলের মধ্যে ১২তম হয়েছে বাংলাদেশ। মিক্সড কম্পাউন্ডে ১ হাজার ৩৬৬ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশ ১৪ দলের মধ্যে অষ্টম, মিক্সড রিকার্ভে ১ হাজার ২৪৯ স্কোর নিয়ে ১৯ দলের মধ্যে ১৩তম হয়েছে বাংলাদেশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ