শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার হুঁশিয়ারি ফিলিস্তিনের

 

১৯ নবেম্বর, আল জাজিরা, পার্সটুডে : যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে ফিলিস্তিন। এক ভিডিও বার্তায় ফিলিস্তিন স্বশাসন কর্তৃপক্ষের সিনিয়র আলোচক সায়েব এরিকাত বলেছেন, মার্কিন কর্তৃপক্ষ যদি ওয়াশিংটনে অবস্থিত ফিলিস্তিনি মিশন বন্ধ করে দেওয়ার পরিকল্পনায় অটল থাকে; তবে তাদের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়া হবে। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম।

ফিলিস্তিনের ক্ষমতাসীন দল প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও)-এর মহাসচিবের দায়িত্বও পালন করছেন সাইব উরেইকাত। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে অভিযোগ দায়েরের প্রচেষ্টাকে কেন্দ্র করে ওয়াশিংটন ওই মিশনের অনুমতি নবায়ন না করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রেক্ষিতেই তার এই বক্তব্য।শনিবারের ওই ভিডিও বার্তায় সাইব উরেইকাত বলেন, ফিলিস্তিনি মিশন বন্ধ করে দেয়ার মার্কিন সিদ্ধান্ত অত্যন্ত দুঃখজনক ও অগ্রহণযোগ্য। ইহুদিবাদী ইসরায়েলের চাপের কাছে নতি স্বীকার করে তারা এই হুমকি দিয়েছে। আমরা এই মার্কিন প্রশাসনের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেব। ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের তৎকালীন প্রধান ইয়াসির আরাফাত ১৯৯৩ সালে আলোচনার মাধ্যমে ইসরায়েলের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের সংকট মিটিয়ে ফেলার মার্কিন প্রস্তাব মেনে নেন। মার্কিন মধ্যস্থতায় ওই আপোষ প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পরের বছর ১৯৯৪ সালে ইয়াসির আরাফাতের নেতৃত্বাধীন পিএলও ওয়াশিংটনে একটি কূটনৈতিক মিশন খোলে।

তখন থেকে মার্কিন সরকার প্রতি ছয় মাস পর পর এই মিশনের অনুমতি নবায়ন করে। ওই অনুমতি নবায়নের অনেকগুলো শর্তের একটি হচ্ছে, ইসরায়েল ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে যত বড় অপরাধই করুক না কেন তার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানোর জন্য আন্তর্জাতিক কোনও আদালতে যাওয়া যাবে না। তবে সাম্প্রতিক সময়ে ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষ ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত বা আইসিসির দ্বারস্থ হওয়ার পরিকল্পনা করছিল বলে ওয়াশিংটন দাবি করছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা ‘ফিলিস্তিনি নেতাদের সুনির্দিষ্ট কিছু বক্তব্যের’ বরাত দিয়ে দাবি করেছেন, তারা আইসিসি’তে যাওয়ার পরিকল্পনা করার গত সেপ্টেম্বরে ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আইসিসি’র প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, অবৈধ ইহুদি বসতি নির্মাণ এবং ফিলিস্তিনি জনগণের বিরুদ্ধে আগ্রাসন চালানোর দায়ে ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। পিএলও ইসরায়েলের সঙ্গে আপোষ প্রক্রিয়া শুরু করলেও ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলনগুলো শুরু থেকেই এই প্রক্রিয়ার বিরোধিতা করে এসেছে। তারা বলছে, আলোচনার মাধ্যমে নয় বরং প্রতিরোধের মাধ্যমেই কেবল ফিলিস্তিনিরা তাদের ন্যায়সঙ্গত অধিকার আদায় করতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ