মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

বিএনপি ছাড়া নির্বাচন করা সম্ভব নয়

স্টাফ রিপোর্টার : সরকারের সামনে এখন অনেক অসম্ভবের তালিকা রয়েছে জানিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, সরকারের পক্ষে বিএনপি ছাড়া নির্বাচন করা সম্ভব নয়। বেগম খালেদা জিয়া-তারেক রহমান ছাড়াও নির্বাচন সম্ভব নয়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতোও নির্বাচন করা সম্ভব নয়। আবার নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেও নির্বাচন করতে পারবে না তারা। এখন দেখা যাক সরকার কি করে?
গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৩ তম জন্মদিন উপলক্ষে ‘আগামী দিনের বাংলাদেশ ও তারেক রহমানের নেতৃত্ব’ শীর্ষক এ সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম। এতে আয়োজক সংগঠনের উপদেষ্টা কৃষিবিদ মেহেদী হাসান পলাশের সভাপতিত্বে ও সভাপতি মুহাম্মদ সাইদুর রহমানের সঞ্চালনায় বক্তৃতা করেন, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও স্বাধীনতা ফোরাম সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, ইয়ুথ ফোরামের সহ-সভাপতি মাহমুদুল হাসান শামীম, জাতীয় গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সভাপতি আমির হোসেন বাদশা, অ্যাডভোকেট আওরঙ্গজেব বেলাল প্রমুখ।
গয়েশ্বর রায় বলেন, বিএনপির সমাবেশের চার ভাগের একভাগ লোকও আওয়ামী লীগের নাগরিক সমাবেশে হয়নি। সব সুযোগ সুবিধা দেয়ার পরও আওয়ামী লীগের নাগরিক সমাবেশে ৫০ হাজারের মত লোক হয়েছে, এর মধ্যে প্রশাসনের লোকই ছিল ২০ হাজার। আর বিভিন্নভাবে বাধা দেয়ার পরও বিএনপির ১২ নবেম্বরের জনসভায় পাঁচ লাখের বেশি লোক হয়েছে। এতেই প্রমাণিত হয় সরকারের পায়ের তলার মাটি নেই। তাদের গণধস নেমেছে।
তিনি বলেন, নিদর্লীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আওয়ামী জোট ৩০/৪০ আসনের বেশি পাবে না। এজন্য আগের মতোই খালেদা জিয়া-তারেক রহমানকে সরাতে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। এ ষড়যন্ত্র দেশে-বিদেশে এবং বিএনপির লোক দিয়েও করা হতে পারে। এজন্য সতর্ক থাকতে হবে।
বিএনপিকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার ক্ষমতা কারো নেই মন্তব্য করে গয়েশ্বর বলেন, তবে জনগণের ভোট দেয়ার পরিবেশ সৃষ্টি না হলে সে নির্বাচনে যাওয়ার কোন কারণ নেই। তিনি সরকারের প্রতি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বলেন, বিএনপি প্রথম সারির নেতাদের বসিয়ে রেখে যদি দ্বিতীয়-তৃতীয় সারির নেতাদেরও ভোটে দাঁড় করানো হয় তাহলেও আওয়ামী লীগ নির্বাচনে জিততে পারবে না। এমনকি গোপালগঞ্জেও আসন পাবে কিনা সন্দেহ আছে।
বেগম খালেদা জিয়া সরকারকে ক্ষমা করলেও দেশের জনগণ তাদেরকে ক্ষমা করেনি মন্তব্য করে বিএনপি এ নেতা বলেন, কেবলমাত্র প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করে নিদর্লীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন এবং সে নির্বাচনে তারা অংশগ্রহণ করে সহযোগিতা করলেই জনগণ তাদের ক্ষমা করতে পারে। নিদর্লীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ নির্বাচন বয়কট করতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন এ নেতা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ