বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

রংপুরের বিপক্ষে অসাধারণ এক জয় কুমিল্লার

স্পোর্টস রিপোর্টার : বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে অসাধারণ এক জয় পেল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। মাত্র ১৫৪ রানের টার্গেট দিয়েও গেইল-ম্যাককুলামদের বিপক্ষে ১৪ রানের জয় তুলে নিয়েছে তামিম ইকবালের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এই জয়ের ফলে ৫ ম্যাচে চতুর্থ জয় পেল কুমিল্লা। আর চতুর্থ ম্যাচে এটা মাশরাফির রংপুর রাইডার্সের তৃতীয় পরাজয়। গতকাল মিরপুরে আগে ব্যাট করে কুমিল্লা ৬ উইকেটে করে ১৫৩ রান। ১৫৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে রংপুর ৭ উইকেটে ১৩৯ রান করলে কুমিল্লা জয় পায় ১৪ রানে।
জয়ের জন্য রংপুর রাইডার্সের সামনে টার্গেট ছিল ১৫৪ রান। টার্গেটটা সহজই ছিল রংপুরের জন্য। বিশেষ করে ক্রিস গেইল আর ম্যাককালাম যে দলের হয়ে ওপেন করতে নামে সে দলের জন্য ১৫৪ রানের টার্গেটটা সহজই বলা যায়। কিন্তু ব্যাট করতে নেমে প্রথমেই কঠিন বিপদের মুখে পড়ে রংপুর রাইডার্স। কুমিল্লার দুই বোলার মেহেদি মিরাজ আর রশিদ খানের বোলিং আক্রমনে প্রথম থেকেই দ্রুত রান নিতে পারছিলেন না এই বিশ্বসেরা ওপেনার। ম্যাককালাম শুরুটা একটু ভালো করলেও নিজের প্রথম বলেই ফিরতে পারতেন গেইল। কিন্তু আম্পায়ার মিরাজের বলে নিশ্চিত এলবি আউট না দিলে বেঁচে যান গেইল। ব্যক্তিগত ৭ রানে আরো একবার জীবন পান গেইল। এবার হাসান আলীর করা বল লিটন দাস ক্যাচ নিতে পারলে ফিরতে হতো গেইলকে। কিন্তু দ্বিতীয় সুযোগটিও মিস করে কুমিল্লা। তারপরও শেষ রক্ষা হয়নি গেইলের। কারণ দলীয় ৩১ রানে তাকে ফেরান রশিদ খান। রশিদ খানের বলে এলবি আউট হওয়ার আগে গেইল ১৩ বলে করেন ১৭ রান। দলীয় ৩১ রানে গেইল আউট হওয়ার পরে দলীয় ৩১ রানেই পরের দুটি উইকেট হারায় দলটি। আর দলীয় ৩২ রানের চতুর্থ উইকেট হারানো রংপুর ৩২ রানে প্রথম চার উইকেট হারিয়ে চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে। গেইলের বিদায়ে ব্যাট করতে নেমে রান না করেই ফিরতে হয় পেরেরাকে। তাকেও ফিরান রশিদ খান। এবার  মেহেদি মিরাজ অপর ওপেনার ম্যাককুলামকে ১৩ রানে ফেরানোর পর শাহরিয়ার নাফিসকে ফিরান শূন্য রানে। ম্যাককালাম ১৪ বলে করেন ১৩ রান। দলীয় ৩২ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে রংপুর। তারপরও পঞ্চম উইকেট জুটিতে মোহাম্মদ মিথুন আর বোপারা জুটি করে রংপুরকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন। এই জুটি ভাংগার আগেই দলটি পৌছে যায় ৯৯ রানে। দলীয় ৯৯ রানে আল-আমিনের বলে মোহাম্মদ মিথুনের বিদায়ে ভাংগে এই জুটি। আউট হওয়ার আগে মিথুন করেন ৩১ রান। ফলে ৯৯ রানে রংপুর হারায় ৫ উইকেট। বোপারার সাথে ব্যাট করতে নেমে রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফি শেষ চেষ্টা করেছিলেন দলকে জয় এনে দিতে। কিন্তু দলীয় ১২৬ রানে রান আউটের ফাঁদে পড়ে ফিরতে হয় মাশরাফিকে। আউট হওয়ার আগে মাশরাফি করেন ১১ বলে ১৭ রান। শেষ পর্যন্ত রংপুর ৭ উইকেটে করতে পারে ১৩৯ রান। বোপারা ৩৯ রানে অপরাজিত ছিলেন। মিরাজ আর রশিদ খান নেন ২টি করে উইকেট।
এর আগে, টস হেরে প্রথমে ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫৩ রান করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। দলের পক্ষে ইমরুল কায়েস সর্বোচ্চ ৪৭ রান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মারলন স্যামুয়েলস ৪১ রান করেন। এছাড়া দলের পক্ষে অন্য কোন ব্যাটসম্যান বড় কোন ইনিংস খেলতে পারেননি। ওপেনার তামিম ইকবাল ২১ রান, লিটন দাস ১১ রান আর সাইফউদ্দিন ১৬ রান করলেও অন্য সবার স্কোর ছিল একক ফিগারে। ফলে রংপুরের সামনে বড় কোন টার্গেট দিতে পারেনি কুমিল্লা। রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা ও শ্রীলংকার থিসারা পেরেরা ২টি করে উইকেট নেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: ১৫৩/৬ ( ২০ ওভার)
রংপুর রাইডার্স : ১৩৯/৭ (২০ ওভার)
কুমিল্লা ১৪ রানে জয়ী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ