শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

খুলনায় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার্থী ৪০ হাজার

খুলনা অফিস: সারাদেশের ন্যায় খুলনায় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আগামী ১৯ নবেম্বর । ইতোমধ্যে সকল প্রস্ততিও সম্পন্ন হয়েছে। বেলা ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনীর প্রথম দিন ইংরেজি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ৪০ হাজার ১৮৮ জন ক্ষুদে শিক্ষার্থী এ পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। তবে এ বছর পরীক্ষার্থী কমেছে ২ হাজার ৫৭০ জন। পরীক্ষা শেষ হবে আগামী ২৬ নবেম্বর। গেল বছর ২০ নবেম্বর শুরু হয়ে ২৭ নবেম্বর শেষ হয়।
সংশ্লিষ্ট দপ্তরের দেয়া তথ্য মতে, এবার খুলনা জেলায় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ১১৮টি  কেন্দ্রে ৪০ হাজার ১৮৮ জন অংশগ্রহণ নিচ্ছে। এর মধ্যে প্রাথমিকে ৩৬ হাজার ৭৯৩ জন এবং ইবতেদায়িতে ৩ হাজার ৩৯৫ জন। প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীতে ১৭ হাজার ৩৯৯ জন ছাত্র এবং ১৯ হাজার ৩৯৪ জন ছাত্রী রয়েছে। আর ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনীতে ছাত্র ১ হাজার ৮১৭ জন এবং ছাত্রী ১ হাজার ৫৭৮ জন।
সূত্র জানায়, গেল বছর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনীতে পরীক্ষার্থী ছিল ৪২ হাজার ৭৫৮ জন। এর মধ্যে প্রাথমিকে ছিল ৩৮ হাজার ৯৬৮ জন এবং ইবতেদায়িতে ছিল ৩ হাজার ৭৯০ জন। জরিপ অনুযায়ী এ বছর পরীক্ষার্থী কমেছে ২ হাজার ৫৭০ জন। এবছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী খুলনা সদরে ২১টি কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী রয়েছে ১০ হাজার ৫২০ জন।এছাড়া রূপসা উপজেলার ৫টি কেন্দ্র ২৯৯১ জন, কয়রা উপজেলায় ১১টি কেন্দ্রে ৩৩৭১ জন, ডুমুরিয়ায় ১৯টি কেন্দ্রে ৪৯২৯ জন,  তেরখাদায় ১০টি কেন্দ্রে ২১৩৪ জন, দাকোপের ১৫টি  কেন্দ্রে ২১৯১ জন, দিঘলিয়ায় ৯টি কেন্দ্রে ২০৯১ জন, পাইকগাছায় ১৪টি কেন্দ্রে ৩৭৭৮ জন, ফুলতলায় ৪টি  কেন্দ্রে ২৩১১ জন এবং বটিয়াঘাটায় ১০টি কেন্দ্রে ২৭৯১ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে। ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার্থীদের মধ্যে নগরীতে রয়েছে ৯২৮ জন। রূপসায় ৩৫৬ জন, কয়রায় ৪২১ জন, ডুমুরিয়ায় ৫৪০ জন,  তেরখাদায় ১৬২ জন, দাকোপে ৯৪ জন, দিঘলিয়ায় ৪২ জন, পাইকগাছায় ৪৩৮ জন, ফুলতলায় ২৯৯ জন এবং বটিয়াঘাটায় ১৩২ জন। প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা কেন্দ্রে ইবতেদায়ি শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
উল্লেখ্য, স্ব-স্ব উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পরীক্ষা পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করবেন। কেন্দ্র সচিব হিসেবে স্ব-স্ব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা হল সুপারের দায়িত্ব পালন করবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ