বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সুন্দরবনে র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে ২ বনদস্যু নিহত ॥ ৭টি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার

বাগেরহাট সংবাদদাতা: বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরনখোলা রেঞ্জের কাতলার খালে র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে দুই বনদস্যু নিহত হয়েছে। এসময়ে র‌্যাব-৮ বনদস্যুদের ব্যবহৃত ৭টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ১২৪ রাউন্ড গুলিসহ বিভিন্ন উপকরণ উদ্ধার করে। বুধবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে সুন্দরবনের কাতলার খাল সংলগ্ন এলাকায় এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। বন্দুকযুদ্ধে নিহতদের মধ্যে রয়েছে বনদস্যু আব্বাস বাহিনীর সহ অধিনায়ক ইউসুফ ফকির ও একই দলের সিরিয়াল কিলার হিসেবে পরিচিত রুহুল আমীন। নিহতদের বাড়ি বাগেরহাট জেলার রামপাল ও মংলা উপজেলায়।
র‌্যাব -৮ এর অধিনায়ক উইং কমান্ডার হাসান ইমন আল রাজীব জানান, সুন্দরবনের শরনখোলা রেঞ্জের কাতলার খাল এলাকায় বনদস্যুদের আস্তানা রয়েছে এমন গোপন সংবাদের পর  র‌্যাব সদস্যরা বুধবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে সেখানে অভিযান শুরু করে। র‌্যাব সদস্যরা সুন্দরবনের কাতলার খাল এলাকায় প্রবেশ করলে বনের মধ্য থেকে কয়েক ব্যক্তির কথাবার্তা শুনতে পেয়ে  অভিযানে থাকা র‌্যাব সদস্যরা তাদের নাম পরিচয় জানতে  চায়। তখন বনদস্যুরা কোন জবাব না দিয়ে অতর্কিত ভাবে  র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে থাকে ।  এসময়ে র‌্যাব সদস্যরাও পাল্টা গুলি চালায়। প্রায় ৪০ মিনিট ধরে উভয় পক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ চলতে থাকে। পরে বনদস্যুদের পক্ষ থেকে গুলি ছোড়া বন্ধ হলে র‌্যাব সদস্যরা বনের মধ্যে তল্লাশি শুরু করে। এসময়ে  কাতলার খালের পার্শ^বর্তি বনের মধ্যে গুলিবিদ্ধ  অবস্থায় দুই বনদস্যুর মৃতদেহ পাওয়া যায়। স্থানীয় জেলেরা পরে লাশ দুটি বনদস্যু আব্বাস বাহিনীর সহ অধিনায়ক মো. ইউসুফ ফকির ও রুহুল আমীনের বলে সনাক্ত করে।
র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা আরও জানান ঘটনাস্থল থেকে বনদস্যুদের ব্যবহৃত ২টি একনালা বন্দুক,একটি কাটা রাইফেল, ১টি এয়ার রাইফেল , ২টি পাইপগান,১২৪ রাউন্ড বন্দুকের কার্তুজ, ১টি ছোট ট্রাভেল ব্যাগ, ২টি গুলি রাখার বান্ডুলিয়ার, ৩টি দেশীয় তৈরি রামদা ও ২টি দেশীয় ধারালো ছুরি উদ্ধার করা হয়। পরে সেগুলি বাগেরহাটের শরনখোলায় থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ