শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

বগুড়ার শেরপুরে ‘সেরা’ জাতের হাইব্রিড বেগুন চাষ করে মোফাজ্জল এখন লাখপতি

উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের লাক্ষ্মীকোলার সেনপাড়ায় গেটকো এগ্রো ভিশন লিমিটেড আয়োজিত হাইব্রিড বেগুন ‘সেরা’ জাতের বেগুন প্রদর্শনী ও মাঠ দিবসে মোফাজ্জলের বেগুন ক্ষেতে কৃষি কর্মকর্তা, কোম্পানীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও স্থানীয় কৃষক

তোফায়েল আহম্মেদ, শেরপুর (বগুড়া) সংবাদদাতা : বগুড়ার শেরপুরে গেটকো এগ্রো ভিশন লিমিটেডের ‘সেরা’ জাতের হাইব্রিড বেগুন চাষ করে লাভবান হয়েছেন মোফাজ্জল হোসেন। তিনি মাত্র ১০ শতাংশ জমিতে বেগুন চাষ করে প্রায় লক্ষাধিক টাকা আয় করেছেন। ঐ জমিতে তার মোট খরচ হয়েছে মাত্র ৫ হাজার টাকা। মোফাজ্জল জানান, জমিতে যে বেগুন অবশিষ্ট আছে এবং গাছের যে অবস্থা তাতে তিনি আরো প্রায় ৫০ হাজার টাকার বেগুন বিক্রির আশা করছেন। মোফাজ্জল হোসেন শেরপুর উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের মুরাদপুর গ্রামের মোঃ মামুনুর রশিদের ছেলে।
গত ২৪ অক্টোবর মঙ্গলবার বিকাল ৫ টায় শেরপুর উপজেলার কুসুম্বী ই্উনিয়নের লাক্ষীকোলার সেন পাড়ায় গেটকো এগ্রো ভিশন লিমিটেড আয়োজিত হাইব্রিড বেগুন ‘সেরা’ জাতের সবজি প্রদর্শনী ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে ‘সেরা’ জাতের বেগুন চাষে সফলতার কথা জানান মোফাজ্জল। স্থানীয় কৃষক নাজিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, শেরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ খাজানুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, গেটকো এগ্রো ভিশন লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার(সেলস এন্ড মার্কেটিং) কৃষিবিদ গোলাম মোর্শেদ ফারুক, রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট হেড কৃষি বিজ্ঞানী এজেডএম খোরশেদ আলম চৌধুরী(বাবলা), কৃষিবিদ  মোঃ নুরুন্নবী তালহা, ট্রেনিং এন্ড প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট সার্ভিস ম্যানেজার মোঃ জহুরুল ইসলাম, এরিয়া ম্যানেজার মোঃ শামীম আল মামুন, মিঠু বীজ ভান্ডারের মালিক মিঠু কুন্ডু প্রমুখ।
মোফাজ্জল হোসেন জানান, তিনি শ্রাবণ মাসে ‘সেরা’ জাতের হাইব্রিড বেগুন জমিতে লাগিয়ে ছিলেন। প্রতিটি বেগুনের ওজন প্রায় ৩৫০ থেকে ৪০০ গ্রাম। বেগুনে বীজের পরিমান কম থাকায় খেতে সুস্বাদু। রং আকর্ষনীয় ও উজ্জ্বল থাকায় বাজারে বেশ চাহিদা থাকে। অন্যান্য জাতের চেয়ে ফলন বেশী এবং রোগ বালাইয়ের আক্রমণ কম থাকায় কৃষকরা এ জাতের বেগুন চাষ করে অধিক লাভবান হওয়া সম্ভব। তিনি জানান ১০ শতাংশ জমি থেকে তিনি এ পর্যন্ত প্রায় ১০৮ মণ বেগুন বিক্রি করেছেন।
শেরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ খাজানুর রহমান জানান, সরকারের পাশাপাশি বে-সরকারি সংস্থা গুলো দেশের কৃষি ক্ষেত্রে গবেষণা করে নতুন নতুন উন্নত ও উচ্চ ফলনশীল জাতের ফসল উৎপাদন করছেন। হাইব্রিড ‘সেরা’ জাতের বেগুন তার মধ্যে একটি। এই জাতের বেগুন চাষ করে  শেরপুরের মোফাজ্জল অল্প জমি কাজে লাগিয়ে অধিক লাভবান হয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ