বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

দি স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ঢাকার বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

দি স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন সাভার এর উৎসব মুখর পরিবেশে গতকাল শুক্রবার বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়

দি স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন, ঢাকা এর বৃত্তি পরীক্ষা গতকাল শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজধানীর বাদশাহ ফয়সল ইন্সটিটিউট ও বালুঘাট উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন স্কুল ও মাদরাসার ৪র্থ থেকে ৯ম শ্রেণীর দুই সহ¯্রাধিক শিক্ষার্থী বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়।

বৃত্তি পরীক্ষায় প্রধান অতিথি হিসেবে হল পরিদর্শন করেন নজরুল ইন্সটিটিউটের সাবেক পরিচালক ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে এর সভাপতি কবি আবদুল হাই শিকদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের পৃষ্ঠপোষক মোহতাসিম বিল্লাহ, সাবেক পরিচালক মুজাহিদুল ইসলাম শাহীন, ড. আব্দুল মান্নান, ডা. মঈন উদ্দীন, রফিকুল ইসলাম ও পরিচালক ডা. মুজাহিদুল ইসলাম। আরও উপস্থিত ছিলেন স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সদস্য সচিব আব্দুল আলীম, নির্বাহী সদস্য জুবায়ের হোসাইন রাজনসহ কর্মকর্তাবৃন্দ। 

পরীক্ষা হল পরিদর্শন শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করে আবদুল হাই শিকদার বলেন, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এই সংস্থাটি সৎ, যোগ্য, সঠিক আদর্শে বিকশিত নাগরিক তৈরির উদ্দেশ্যে নিরলসভাবে যে কাজ করে যাচ্ছে তার প্রশংসা করার মতো ভাষা আমার জানা নেই। তিনি বলেন, বাংলাদেশকে সুখী সমৃদ্ধশালী ও সঠিক পথে পরিচালনার জন্য যোগ্যতা সম্পন্ন দেশপ্রেমিক নাগরিক ও সৎ নেতৃত্বের বিকল্প নেই। কিন্তু আমাদের দেশের নাজুক শিক্ষানীতির কারণে জাতি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার আলোকে গড়ে উঠা ভবিষৎ প্রজন্ম ভিনদেশী সংস্কৃতি দ্বারা ব্যাপক ভাবে আগ্রাসনের শিকার হচ্ছে। এমতাবস্থায় স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের মতো সংস্থা তার নিয়মিত কার্যক্রমের মাধ্যমে এদেশের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের যে দিক্ষা দিচ্ছে আমি তার উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করছি এবং আশা করছি এর দ্বারা একদিন এ দেশ ও জাতি উপকৃত হবে । 

এসোসিয়েশনের পরিচালক ডা.মুজাহিদুল ইসলাম বলেন, স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন প্রতিষ্ঠাকাল থেকে চেষ্টা করে আসছে আদর্শ জাতি গঠনের জন্য। স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের অন্যান্য কার্যক্রমের পাশাপাশি অন্যতম একটি বৃহৎ প্রকল্প হল বৃত্তি পরীক্ষা। বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিভিন্ন সময়ে ক্যারিয়ার গাইড লাইন প্রোগ্রাম, শিক্ষা সফর, লেখক তৈরির উদ্দেশ্যে প্রশিক্ষণ প্রদান, বিভিন্ন দিবস উপলক্ষে সাহিত্য পত্রিকা প্রকাশ, স্বাস্থ্য সচেতন করার জন্য মেডিকেল ক্যাম্প, সুস্থ বিনোদনের লক্ষ্যে সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। এসব শুধুমাত্র সম্ভব হয়েছে সম্মানিত অভিভাবকদের স্বতঃস্ফূর্ত আগ্রহের কারণে। তিনি সকল অভিভাবক, পৃষ্ঠপোষক ও শুভাকাঙ্খিদের স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের কার্যক্রমে সমর্থনের জন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। 

প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ পরীক্ষা কেন্দ্রের সার্বিক পরিবেশ ও ব্যবস্থাপনা দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং এরকম শিক্ষামূলক কর্মকান্ড অব্যাহত রাখার জন্য ওয়েলফেয়ারের কর্মকর্তাদের আহ্বান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ