শনিবার ০৬ জুন ২০২০
Online Edition

খুলনায় কৃষকদের আশার আলো দেখিয়েছে সেক্স ফেরোমন ফাঁদ

খুলনা অফিস : ফসলের ক্ষতিকর পোকা দমনে কৃষকের বন্ধু সেক্স ফেরোমন ফাঁদ। এটি একদিকে যেমন খুব সহজেই ক্ষতিকর পোকা দমন করতে সক্ষম হচ্ছে অন্যদিকে খরচ হচ্ছে খুবই সামান্য এবং রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহার করতে হচ্ছে না। খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার জলমা ইউনিয়নের কৃষকদের কাছে তাই ফেরোমন ফাঁদ এক যাদুর ফাঁদ। ফল ছিদ্রকারী পোকা, ফলের মাছি পোকা, সাদা মাছি পোকাসহ ইত্যাদি পোকা সমূহ সাধারণত সিনথেটিক কীটনাশকে দমন করা সম্ভব নয়, ফলে প্রচুর পরিমানে ক্ষতিকর রাসায়নিক কীটনাশকের প্রয়োজন হয়। যা মাত্রাতিরিক্ত হারে খরচ বৃদ্ধি করে এবং অন্যদিকে সৃষ্টি করে মারাত্মক পরিবেশগত ও স্বাস্থ্যগত সমস্যা। এক্ষেত্রে বটিয়াঘাটার কৃষকদের আশার আলো দেখিয়েছে সেক্স ফেরোমন ফাঁদ। পুরুষ পোকাদের কাছে টানার জন্য স্ত্রী পোকারা এক ধরনের রাসায়নিক পদার্থ নির্গত করে, যা সেক্স ফেরোমন নামে পরিচিত। সেক্স ফেরোমনের ঘ্রাণে পুরুষ পোকারা স্ত্রী পোকাদের দিকে প্রবলভাবে আকৃষ্ট হয়। কৃত্রিম উপায়ে তৈরি ফেরোমন সূক্ষ ছিদ্রসহ প্লাস্টিকের ছোট টিউব, বোতল বা পাত্রে ভরে এর মুখ হতে ৩-৪ সেন্টিমিটার নিচে একটি সরু তার দিয়ে স্থাপন করা হয়। এতে পুরুষ পোকা আকৃষ্ট হয় এবং পোকা মারার জন্য নীচে এক ধরনের ফাঁদ ব্যবহার করা হয়। একটি ফাঁদ তৈরির পর তা ৬-৭ সপ্তাহ পুরুষ পোকাকে আকৃষ্ট করতে সক্ষম হয়। এই ফাঁদ ব্যবহার করে কীটনাশকের তুলনার এক-চতুর্থাংশের কম খরচে প্রায় দ্বিগুণ ফসল পাওয়া সম্ভব। হরিণটানা গ্রামের কৃষক সরোয়ার হোসেন বলেন, লাউ ক্ষেতের পোকা দমন খুবই কষ্টকর ছিল। লাউ এর জালি কালো হয়ে নষ্ট হয়ে যেত। বর্তমানে উপজেলা কৃষি অফিসের জীবন দা এর পরামর্শে সেক্স ফেরোমন ব্যবহার করায় লাউ এর জালি নষ্ট হচ্ছে না, ফলনও ভালো পাচ্ছি। খরচ আগের বছরের চেয়ে অনেক কম। মোহাম্মদনগর গ্রামের কৃষক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, আমার তিন বিঘা জমিতে বিভিন্ন সময়ে উচ্ছে, মিষ্টি কুমড়া, বাঙ্গি, তরমুজ, ঝিঙ্গে ক্ষেতে সেক্স ফেরোমন ব্যবহার করেছি। কীটনাশক খরচ নেই বললেই চলে। আগের চেয়ে ফসলও ভালো। বটিয়াঘাটা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রুবায়েত আরা জানান, সংশ্লিষ্ট ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচির আওতায় কৃষকরা সেক্স ফেরোমন ব্যবহার করছেন। এটি পরিবেশ বান্ধব বিধায় উপজেলা জুড়ে এর সম্প্রসারণ কাজ চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ