মঙ্গলবার ২৪ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

ফাইনালে ভারত ॥ স্থান নির্ধারণী ম্যাচে পাকিস্তান

স্পোর্টস রিপোর্টার : এশিয়া কাপ হকির ফাইনালে খেলা হচ্ছেনা তিনবারের চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানের। সুপার ফোরে নিজেদের শেষ ম্যাচে ভারতের কাছে হেরে যাওয়ায় দলটিকে এখন তৃতীয় স্থানের জন্য লড়াই করতে হবে। ৩২ বছর আগে এই ঢাকার মাঠেই ভারতকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিলো পাকিস্তান। সেই পাকিস্তানকে এবার গ্রুপ ম্যাচ ও সুপার ফোরে হারিয়ে শিরোপার নির্ধারণী ম্যাচে পৌঁছে গেল দুইবারের চ্যাম্পিয়নরা। গতকাল শনিবার মাওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে ভারত ৪-০ গোলে জয় তুলে নিয়েছে। ভারতের ফাইনালে যাওয়া আগেই নিশ্চিত হয়েছিলো। কিন্তু পাকিস্তানকে যেতে হলে শুধু ভারতকে হারানোই নয় কোরিয়া-মালয়েশিয়ার মধ্যকার ম্যাচের ফলাফলের উপরও নির্ভর থাকতে হতো। কিন্তু সেরকম হয়নি। অনেকটা সহজেই জয় তুলে নিলো ভারত। 
পাকিস্তানের শুরুটা ছিল ঝড়ের গতিতে। প্রথম দুই কোয়ার্টারে তিনবারের চ্যাম্পিয়নরা আধিপত্য নিয়েই বারবার হানা দিয়েছে ভারতের রক্ষণে। তিনটি তিনটি পেনাল্টি কর্নারও প্রথমার্ধে আদায় করে নেয় তারা। কিন্তু একটিও কাজে লাগাতে পারেনি এ টুর্নামেন্টে নিজেদের সেভাবে তুলে ধরতে না পারা পাকিস্তান। শুরুর সুযোগগুলো কাজে লাগাতে না পারার খেসারত তারা দিয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। ভারত দ্বিতীয়ার্ধে পুরোপুরি খেলাটা ধরে নিয়ে একের পর এক আক্রমন তৈরি করে। যার ফলও তারা পেয়ে যায় ৩৯ মিনিটে। ডান দিক দিয়ে শ্যুটিং সার্কেলে ঢুকে পোস্টে হিট নেন সাতবির সিং। বলটি ঠেকানোর চেষ্ট করেও পারেননি পাকিস্তানের গোলরক্ষক মাজহার আব্বাস। বল চলে জালে। এগিয়ে যাওয়ার পর ভারত আরো আক্রমনাত্মক হয়ে উঠে। শুরুর গতিটা আর ধরে রাখতে পারেনি পাকিস্তান।
সময় গড়ানোর সাথে সাথে ম্যাচ থেকেই যেনো ছিটকে পড়তে থাকে ৩২ বছর আগে এই ঢাকা থেকে দ্বিতীয় এশিয়া কাপের ট্রফি উড়িয়ে নেয়া পাকিস্তান। অনেকটা হাল ছেড়ে দেয়ার মতো। ৫১ মিনিটে ইয়াকুব মোহাম্মদ বিপদজনক ফাউল করে মাঠ ছেড়ে চলে যান এবং ভারতকে উপহার দেন পেনাল্টি কর্নার। শেষ কোয়ার্টারের প্রথম পেনাল্টি কর্নার থেকেই ব্যবধান বাড়িয়ে নেয় দুইবারের চ্যাম্পিয়নরা। গোল করেন হারমানপ্রীত সিং। ১০ জনের পাকিস্তানকে পেয়ে আক্রমনের ধারটা বাড়িয়ে দেয় ভারত। তৃতীয় গোল পেতে সময় নেয় তারা মাত্র ১ মিনিট। ললিত উপধায়ের গোলের পরই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় পাকিস্তান। ৫৭ মিনিটে আক্রমনের ধারা অব্যাহত রেখে ফাইনালিস্টদের চতুর্থ গোলটি করেন গুরজান্ত সিং।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ