মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

কাহালুর নাগর নদীর তীরে জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ হলেও বন্ধ হয়নি জুয়ার আসর

কাহালু (বগুড়া) সংবাদদাতা : কাহালু ও দুপচাঁচিয়া উপজেলার সীমান্ত এলাকা দিয়ে বয়ে গেছে নাগর নদী। এই নদীকে ঘিরে রয়েছে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বহু স্মৃতি। অথচ এই নদী তীরবর্তী এলাকা এখন অপরাধীদের আখরা। এই নদী পাড়ের বিভিন্ন পয়েন্টে বসে জুয়া ও মাদকের আসর। জানা গেছে ধাপের হাটের দিন দুটি স্থানে সবচেয় বড় জুয়ার আসর বসে। সূত্র মতে দুপচাঁচিয়া সীমানার মধ্যে ধাপের হাটের পূর্ব পার্শ্বে সুকানগাড়ী ক্লাবের লোকজন নাগর নদীর পাড়ে ছামিয়ানা টাঙ্গিয়ে জুয়ার আসর বসায়। আরেকটি গ্রুপ কাহালু উপজেলার সীমানার মধ্যে জিন্নাপাড়ার ঘোলাগাড়ী নামক স্থানে জুয়ার আসর বসায়। জুয়ারুদের আধিপত্ত বিস্তার নিয়ে গত সোমবার বারমাইল ব্রীজের সন্নিকটে দু-গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। ভাংচুর করা হয় একটি ট্রাক। গুরুত্বর জখম হয়ে বেশ কয়েক জন রয়েছেন চিকিৎসাধীন। কাহালু থানায় উভয় পক্ষ পাল্টাপাল্টি মামলাও করেছে। অথচ জুয়ার আসর এখন বন্ধ হয়নি। গতকাল বৃহস্পতিবার বিভিন্ন সূত্রের তথ্যমতে জিন্নাপাড়ার ঘোলাগাড়ীতে জুয়ার আসর বসেনি তবে ধাপের হাটের সাথেই নাগর নদী পাড়ের উপর জমজমাট জুয়ার আসর বসানো হয়। সম্প্রতি জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটনার পরেও সেখানে প্রকাশ্যে চলছে জুয়ার আসর। জুয়ারুরা দাপটের সাথে জুয়ার আসর বসিয়ে হাটুরেদের টাকা লুটে নিলেও সেখানে দেখাও কেউ নেই।
গ্রেফতার ২
কাহালু উপজেলার ঘনকালাই গ্রামের হাছেন আলী পুত্র বকুল সরকার(৩৫)। তার বিরুদ্ধে প্রায় ১৬ টি মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রয়েছে। গত বুধবার সকালে পুলিশ বকুল ও তার সহযোগী ঘনপাড়ার আশরাফ আলীর পুত্র আজাদ সরদার(৪২) ২০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ গ্রেফতার করে। কাহালু থানার এস.আই আবু হেলাল জানান বকুল একজন চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ