মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

ভাসানচরকে সনদ্বীপের অন্তর্ভুক্ত করার দাবিতে রাজধানীতে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার: রোহিঙ্গা পুনর্বাসনের জন্য নির্ধারিত নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচর বা ঠেঙ্গারচরকে সনদ্বীপের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়েছে সনদ্বীপ সীমানা রক্ষা কমিটি। গতকাল শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়।
মানববন্ধনে ঢাকাস্থ সনদ্বীপ উপজেলার বাসিন্দারা সন্দ্বীপকে একটি অবহেলিত অঞ্চল দাবি করে বলেন, নদী ভাঙনের ফলে দ্বীপের হাজার হাজার মানুষ গৃহহারা ও ভূমিহীন হয়ে বেড়িবাঁধের ওপর মানবেতর জীবন যাপন করছে।
এই অবস্থায় সনদ্বীপের সাবেক ইউনিয়ন নেয়ামস্তি ও সুলতানপুরের জায়গায় জেগে ওঠা ভাসানচর নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে। সনদ্বীপের এই চরটিকে সম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যম হাতিয়া দ্বীপের বলে উল্লেখ করছে। বিশেষ করে রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনকে কেন্দ্র করে সন্দ্বীপের এই চরের নাম গণমাধ্যমে বারবার আসছে বলেও মন্তব্য করেন বক্তারা।
মানববন্ধনে আরও বলা হয়, ভাসানচরে গত ১০ বছর ধরে বনায়ন করছে বনবিভাগ। ভাসানচরের দূরত্ব সনদ্বীপ থেকে মাত্র ৪ কিলোমিটার। হাতিয়া থেকে এর দূরত্ব ২২ কিলোমিটার। নোয়াখালী সদর থেকে আরও বেশি। তাহলে কিভাবে এই চর হাতিয়া বা নোয়াখালীর বলে দাবি করা হয়? যেখানে এই চর জেগে উঠেছে ঠিক সেখানেই আগে ছিল সনদ্বীপের নেয়ামস্তি ও সুলতানপুর ইউনিয়ন। হাতিয়া বা নোয়াখালীর কোনও জনপদ সেখানে ছিল না। সুতরাং এই চর নিয়ে নোয়াখালী বা হাতিয়া দ্বীপের দাবি অসত্য ও অযৌক্তিক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ