শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

যমুনা নদী ও বিশখালীতে চলছে মা ইলিশ নিধন

শাহজাদপুর : নিষেধাজ্ঞা, তবুও বিশখালীতে চলছে মা ইলিশ নিধনের মহাউৎসব

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা : প্রতিনিয়ত প্রশাসন অভিযান চালিয়ে ইলিশ শিকারীদের জেল-জরিমানা করলেও থামেনি  যমুনা নদীর শাহজাদপুর পয়েন্টে  ইলিশ শিকারীদের দৌরাত্ম। মধ্যরাত থেকে ভোররাত পর্যন্ত  যমুনা নদীর বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে চলছে ইলিশ নিধনযজ্ঞ। দিনের বেলায়ও খুব সতর্কতার সাথে চলছে ইলিশ শিকার।  লোকচক্ষু আড়াল করতে ট্রলারগুলোতে কোন আলোক বাতি ব্যবহার করছেন না অসাধু জেলেরা। ইলিশ মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞার মাঝে এভাবেই নতুন কৌশলে ইলিশ নিধন চলছে যমুনা নদীর কৈজুরী, গালা ও সোনাতনী ইউনিয়নের বিভিন্ন পয়েন্টে। আর এই মাছ নদীর চরে রেখেই মুঠোফোনের মাধ্যমে ও নদী পাড়ের প্রত্যন্ত বাজার বানতিয়ার, কড়ইতলা, ছোটচাঁনতারা, বড় চাঁনতারা,শ্রীপুর বাজারে দেদারসে  বিক্রি হচ্ছে। তবে এক অভিযানে নতুন এ কৌশল ধরা পড়েছে মাদারীপুরের প্রশাসন ও পুলিশের হাতে। এ পর্যন্ত  অভিযান চালিয়ে বহু জেলেকে আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড ও কয়েক জেলেকে জরিমানাও করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। ইলিশ মাছ রক্ষায় ইলিশ নিধনে সরকারের নিষেধাজ্ঞার মাঝে  প্রশাসন প্রতিনিয়ত হানা দিচ্ছে যমুনা নদীতে। প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে নৌকা নদীতে জাল ফেলেই পালিয়ে যায় জেলেরা। সম্প্রতি সহকারি কমিশনার ভূমি হাসিব সরকার  প্রায় ৬০ কেজি ইলিশ ও প্রায় ২ লাখ মিটার জালসহ ১৪জন জেলে আটক করা হয়।  জব্দকৃত ইলিশ মাছ এতিমখানায় বিতরণ করা হয়। জব্দ করা জাল  পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয় । আটক জেলেদের ৫০০ টাকা করে জরিমানা করে ছেড়ে দেয় ভ্রাম্যমান আদালত। কয়েক জন জেলেকে করা হয়েছে আর্থিক জরিমানা। তবু থামছেনা ইলিশ শিকার।
বিশখালী
মা ইলিশ রক্ষা পেলে, দেশে প্রচুর ইলিশ মেলে। এই স্লোগান যেন শুরু লিফলেট, ব্যানার আর আলোচনাতেই সীমাবদ্ধ। দেশে এখন চলছে ইলিশের প্রজনন মৌসুম। সরকারিভাবে এ সময় ইলিশ নিধন সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কিন্তু সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিশখালী নদীতে ইলিশ মাছের বিচরণ আছে, সেখানে চলছে অবাধে এ মাছ শিকার। মৎস্য কার্যালয় থেকে অভিযান চালানো হলেও তা খুব একটা কার্যকর প্রভাব ফেলতে পারছে না। ১লা অক্টোবর থেকে ২২শে অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার। এ সময় ইলিশ ধরা, ক্রয়-বিক্রয় ও পরিবহন নিষিদ্ধ থাকলে বিশখালীতে চলছে মা ইলিশ নিধনের মহা উৎসব। থেমে নেই যুবক, বৃদ্ধ ও শিশু-কিশোররাও। সরকারি আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নেমে পড়েছে মা ইলিশ ধরার উৎসবে। অজ্ঞাত কারণে সকলে নীরব হয়ে আছে। এলাকার নদ-নদীতে বেশ কিছুদিন থেকে ডিমওয়ালা ইলিশের ঝাঁক ধরা পড়ায় আসন্ন মূল প্রজনন মৌসুমে জাতীয় এ মাছের উৎপাদন ব্যাহত হতে পারে বলেন মন্তব্য করছেন সচেতন মহল। কিন্তু সরকারি আদেশ অমান্য করে কর্তৃপক্ষের নাকের ডগায় বিশখালীর বিভিন্ন পয়েন্টে চলছে মা-ইলিশ নিধনের মহা-উৎসব। বড় ইলিশের সঙ্গে বাদ পড়ছে না ছোট আকারের জাটকাও। বিশখালী নদী এখন যেন ইলিশ শিকারির দখলে। নদীতে তাকালেই নজর পড়ছে ইলিশ ধরার নৌকা। নদীর পাড়ে প্রকাশ্যে ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ইলিশ।
এ বিষয় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান,আমাদের অভিযান বহাল আছে, এর মধ্য আমরা প্রায় ১০ হাজার। মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করেছি কিন্তু নিয়মিত নৌ পুলিশের তেমন তৎপরতা না থাকায়, অভিযান অনেকটা সফল হচ্ছে না।নিয়ামতি নৌ-থানার অফিসার ইনচার্জ বলেন মানুষ জনের অভিযোগ শুধু পুলিশের উপর। আমরা চেষ্টা চলিয়ে যাচ্ছি এবং আমরা সব সময় প্রস্তুত আছি। এবং ইতিমধ্যে দু’জনকে আটকও করেছি, জাল নৌকা,জব্দও করছি তবে স্থানীয়রা জনগণ সচেতন থাকলে আরো ভালো হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ