শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

আজই একতরফা স্বাধীনতা ঘোষণা করতে পারে কাতালোনিয়া

৯ অক্টোবর, ডয়চে ভেলে : স্পেনের ঐক্যের পক্ষে দেশজুড়ে বিক্ষোভ সত্ত্বেও আপাতত মাদ্রিদ ও কাতালোনিয়া সরকারের মধ্যে সংলাপের কোনো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। এই অবস্থায় মঙ্গলবার একতরফা স্বাধীনতার ঘোষণা করতে পারে কাতালোনিয়ার মুখ্যমন্ত্রী কারলেস পুজেমন।স্পেনের কাতালোনিয়া রাজ্যে সবাই যে স্বাধীনতার পক্ষে নয়, সে বিষয়টি শুরু থেকেই স্পষ্ট ছিল। গণভোটের সময় নীরব থাকার পর স্বাধীনতা-বিরোধীরা এবার পথে নামছে। রবিবার বার্সেলোনা শহরে কাতালান নাগরিক সমাজের ডাকে প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষ স্পেনে থেকে যাবার পক্ষে বিক্ষোভ দেখিয়েছে। তাদের হাতে ছিল বেশ কিছু স্লোগানবাহী পতাকা।
স্পেনেই কাতালোনিয়া’ বা ‘একসঙ্গে আমরা আমরা আরো শক্তিশালী' – এমন সব বার্তা নিয়ে তারা পথে নেমেছিল। এর আগে স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদেও দুই পক্ষের উদ্দেশ্যে আলোচনার মাধ্যমে বর্তমান সঙ্কট মিটিয়ে ফেলার ডাক দিয়ে অনেক মানুষ পথে নেমেছিলেন।
দেশে-বিদেশে সংলাপের ডাক সত্ত্বেও কাতালোনিয়া রাজ্য ও স্পেনের ফেডারেল সরকার যে যার অবস্থানে অটল রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাখোই বলেছেন, বর্তমানে কাতালোনিয়া রাজ্য স্বায়ত্তশাসনের ক্ষেত্রে যে বাড়তি কিছু অধিকার ভোগ করে, সেগুলি প্রত্যাহারের সম্ভাবনা তিনি উড়িয়ে দিচ্ছেন না। একতরফা স্বাধীনতা ঘোষণা করলে তিনি রাজ্য সরকারকে বরখাস্ত করার হুমকিও দিয়েছেন। রাখোই একাধিকবার স্পষ্ট বলে দিয়েছেন, যে স্বাধীনতার প্রশ্নে তিনি কোনো রকম সংলাপ চালাবেন না। কাতালোনিয়া রাজ্য সরকারের প্রস্তাব অনুযায়ী মধ্যস্থতার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।এই অবস্থায় কাতালোনিয়ার মুখ্যমন্ত্রী কারলেস পুজেমন ঘরে-বাইরে প্রবল চাপের মুখে পড়েছেন। মঙ্গলবার কাতালোনিয়ার রাজ্য বিধানসভার বিশেষ অধিবেশনে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায় তিনি ভাষণ দেবেন। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে তার সরকারের বক্তব্য পেশ করার সময় তিনি বিতর্কিত গণভোটের রায়ের ভিত্তিতে একতরফা স্বাধীনতা ঘোষণা করতে পারেন, এমন সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।গণভোটের ভিত্তিতে সংসদের স্বাধীনতা আইন কার্যকর করার ঘোষণা করেছেন তিনি। তিনি এও বলেন, যে মাদ্রিদে ফেডারেল সরকারের সঙ্গে সংলাপ আপাতত বন্ধ রয়েছে।বর্তমান সঙ্কটের কারণে কাতালোনিয়া রাজ্যের অর্থনৈতিক ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে। এই অঞ্চলের বিপুল সমৃদ্ধির পেছনে যে সব শিল্প প্রতিষ্ঠান অবদান রাখছে, তাদের অনেকেই কর্মকা- অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাবার কথা ভাবনাচিন্তা করছেন। এমনটা হলে কাতালোনিয়ার কর ও রাজস্ব অনেক কমে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাছাড়া স্বাধীনতার মূল্য হিসেবে কাতালোনিয়া ইউরোপীয় একক মুদ্রা ইউরো এবং শেঙেন চুক্তি থেকেও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়তে পারে। বর্তমান সঙ্কটের ফলে সামগ্রিকভাবে স্পেনের অর্থনীতির ভবিষ্যৎ নিয়েও ইউরোপে দুশ্চিন্তা বাড়ছে।
বার্সেলোনায় স্পেনের একতার পক্ষে বিশাল সমাবেশ
কাতালুনিয়ার রাজধানী বার্সেলোনায় স্পেন থেকে স্বাধীনতা ঘোষণার বিরোধিতা করে দেশের ঐক্যের পক্ষে সমাবেশ করেছে অন্তত ৩ লাখ ৫০ হাজার মানুষ।
তারা স্পেন ও কাতালুনিয়ার পতাকা উড়িয়েছে। অনেকের হাতেই ছিল ব্যানার, তাতে লেখা, “একসঙ্গে আমরা অনেক বেশি শক্তিশালী” আর “কাতালুনিয়াই হচ্ছে স্পেন।”
কাতালান নেতারা আগামী সপ্তাহেই স্পেন থেকে স্বাধীনতা ঘোষণা করবেন এমন জল্পনার মধ্যে কাতালুনিয়ায় এটিই সবচেয়ে বড় সমাবেশ। স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাখয় সতর্ক করে বলেছেন, আইনগতভাবে কাতালুনিয়ার স্বাধীনতা রুখতে কোনও পদক্ষেপই তিনি নাকচ করবেন না।
শনিবার রাখয় বলেন, কাতালুনিয়া স্বাধীনতা দাবি করলে স্পেন কাতালান সরকারকে অপসারণ করে নতুন করে নির্বাচন ডাকতে পারে এমনকি ওই অঞ্চলের বিদ্যমান সায়ত্ত্বশাসনও কেড়ে নিতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ