শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

ডিবি’র অভিযানে খুলনায় ‘ব্লাক কফি হাউজে’ ফেন্সিডিলের আস্তানা আবিষ্কার

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ দৌলতপুর কলেজ রোডের ব্লাক কফি হাউজ নামে একটি দোকানে অভিযান চালিয়ে ৩৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ এক মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করে গত ২৯ সেপ্টেম্বর। এ সময় খালিশপুর উত্তর কাশিপুরের বাসিন্দা মৃত ফরিদ শেখের ছেলে ব্লাক কফি হাউজ এর মালিক মো. রিপন শেখকে (৩৪) গ্রেফতার করা হয়। পরের দিন সকালে ওই কফি হাউজে ব্যাপক তল্লাশি চালায় নগর গোয়েন্দা পুলিশ। এ সময় মাটির নিচ থেকে উদ্ধার করা ফেন্সিডিলের মূল আস্তানার সন্ধান করে সেখান থেকে ৩৪৮ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়েছে।

অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) এএম কামরুল ইসলাম জানান, গত ২৯ সেপ্টেম্বর অপারেশনের পর ফেন্সিডিলের মূল পাইকারী বিক্রেতা পলাতক আসামী দৌলতপুর পশ্চিম কাশিপুর বিএল কলেজ রোডের বাসিন্দা আব্দুল মান্নানের ছেলে মো. আলী ওরফে শেরেকুল (৪৪) এর আস্তানার সন্ধানে তৎপর হয় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এক পর্যায়ে জানা যায় শেরেকুল মাদক ব্যবসা করে কাশিপুরস্থ যমুনা অয়েল রোডে একটি চার তলা বিশিষ্ট বিলাসবহুল বাড়ি তৈরি করেছে।

তথ্য মতে জানা যায়, ভারত থেকে ফেন্সিডিল এনে তার নিজের বাড়ি ও স্ত্রীর বাড়িতে মজুদ করে রাখে। গোপনে জানা যায় যে, বৃষ্টির মধ্যে তার বাড়ি থেকে পার্শ্বস্থ স্ত্রীর বাড়িতে কয়েক বস্তা ফেন্সিডিল লুকানোর জন্য নেয়া হবে। মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের একজন সদস্যকে এই তথ্য যাচাই ও অনুসরণের জন্য সকাল থেকে নিযুক্ত করা হয়। সন্ধ্যা ৬টার দিকে নিশ্চিত জানা যায় সাড়ে তিন বস্তা ফেন্সিডিল সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তখন মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের একটি চৌকশ দল পুলিশ পরিদর্শক এসএম নাফিউর রহমান ও এসআই শাহজাহান কবীর এর নেতৃত্বে সমগ্র এলাকা ঘিরে ফেলে শুরু হয় তল্লাশী। শেষ পর্যন্ত শেরেকুলের স্ত্রীর বাসা থেকে উদ্ধার করা হয় পুরা সাড়ে তিন বস্তা ফেন্সিডিল। যাতে মোট ৩৪৮ বোতল ফেন্সিডিল ছিল। স্থানীয় জনগণের ভিড়ের মধ্যে শেরেকুলের স্ত্রী সালমা বেগম পালিয়ে যায়। আসামী শেরেকুল ২৯ সেপ্টেম্বরের মামলায় থাকায় আগে থেকেই পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, শেরেকুল ও তার স্ত্রীর ভয়ে কোন লোক তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে সাহস করে না। আসামী শেরেকুল ও তার স্ত্রী মাদক ব্যবসা করে চারতলা বাড়ি করেছে। তাদের বসবাসের ফ্লাটে ঘরে ঘরে দামী এয়ার কন্ডিশন, টেলিভিশন, ফ্রিজ, ডিভ ফ্রিজ ও অন্যান্য বিলাসবহুল সামগ্রি দিয়ে সাজানো। আসামী শেরেকুল ও তার স্ত্রী সালমার বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজু করা হচ্ছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

অপরদিকে রোববার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে পুলিশ পরিদর্শক এসএম নাফিউর রহমান ও এসআই শাহজাহান কবীর হরিণটানা থানাধিন ইসলাম নগর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় হরিণটানা থানাধিন ইসলামনগর খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ব পার্শ্বে সিরাজুল ইসলামের বাড়ির ভাড়াটিয়া মৃত আবুল পরামানিকের ছেলে মো. জসিম উদ্দিনকে (২৮) ২৭ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় শেরেকুল ও তার স্ত্রী সালমার বিরুদ্ধে খালিশপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ