শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

নিরাপত্তাকর্মীর ফাঁসি ভাড়াটের যাবজ্জীবন

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকার উত্তরায় এক সেনা কর্মকর্তার মাকে হত্যার দায়ে তাদের বাড়ির নিরাপত্তাকর্মীর ফাঁসির রায় দিয়েছে আদালত, এক ভাড়াটিয়াকে দেওয়া হয়েছে যাবজ্জীবন। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার ৩ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক সাঈদ আহমেদ এক বছর আগের এ হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে উত্তরা ৯ নম্বর সেক্টরের ওই বাড়ির নিরাপত্তাকর্মী গোলাম নবী ওরফে রবিকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকরের আদেশ দেয়া হয়। সেই সঙ্গে দেয়া হয় ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড। মামলার অপর আসামী ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া লাইলী আক্তার লাবণ্যকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের পাশাপাশি ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন বিচারক। রায় ঘোষণার সময় কাঠগড়ায় উপস্থিত দুই আসামী কান্নায় ভেঙে পড়েন। তারা এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন বলে তাদের আইনজীবীরা জানিয়েছেন।

গত বছর ৪ জুন সন্ধ্যায় উত্তরার ওই বাড়িতে লেফটেন্যান্ট কর্নেল খালিদ বিন ইউসুফের মা মনোয়ারা সুলতানাকে (৬৪) হত্যা করা হয়। পরে খালিদ উত্তরা পশ্চিম থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিবরণে বলা হয়, ভাড়াটে লাইলী ওই বাড়িতে ‘যৌনকর্মীর ব্যবসা’ চালিয়ে আসছিলেন। তাতে বাধা দেওয়ায় বাড়ির মালিক মনোয়ারাকে দারোয়ানের সহযোগিতায় হত্যা করে এক লাখ ১৩ হাজার টাকা লুট করা হয়।

দুই আসামী এ মামলার শুরু থেকেই কারাগারে ছিলেন। গতকাল মঙ্গলবার রায় ঘোষণার পর সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাদের ফের কারাগারে পাঠানো হয়।

এ ট্রাইব্যুনালের রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি মাহবুবুর রহমান জানান, মামলার বিচারকালে বাদীপক্ষে ২০ জনের সাক্ষ্য শোনেন বিচারক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ