শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ’ গঠনের সিদ্ধান্ত আইওয়াশ -বিএনপি

গতকাল মঙ্গলবার বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার: রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন’ এর সিদ্ধান্ত আইওয়াশ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, মিয়ানামার ও বাংলাদেশের মধ্যে বৈঠকটি আইওয়াশ ছাড়া কিছুই নয়। জাতিসংঘকে পাশ কাটিয়ে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের চুক্তিতে মিয়ানমার সম্মত হয়েছে বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রী যে কথা গণমাধ্যমকে বলেছেন তা ভাঁওতাবাজি ছাড়া কিছুই না। আমরা মনে করি, রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন একটি সুদীর্ঘ বিলম্বিত পথ। এতে রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নিরাপত্তাসহ স্বদেশে ফেরত নেয়ার কোনো তাগিদ নেই সেখানে। গতকাল মঙ্গলবার নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। 

সাংবাদিক সম্মেলনে দলের চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আজিজুল বারী হেলাল, মীর সরফত আলী সপু, আবদুস সালাম আজাদ, আসাদুল করীম শাহিন, মনির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, মিয়ানমারের মন্ত্রী বাংলাদেশ সফরের সময়েও সেখানে রোহিঙ্গাদের ওপর বর্বর নির্যাতন অব্যাহত রয়েছে।নির্যাতনে সেখান থেকে হাজার হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে আসছে। গত (সোমবার) বিকেলে রোহিঙ্গা হোয়াইক্যাং উলুবনিয়া সীমান্ত দিয়ে ১০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে এসেছে।

এছাড়াও টেকনাফের নাইটাংপাড়া ও শাহপরীর দ্বীপ পয়েন্ট দিয়েও রোহিঙ্গারাও প্রবেশ করেছে। এসব বিষয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র কিছুই বলেননি। তিনি দেশবাসীকে মন ভোলানোর কথা বলেছেন। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের দুদর্শা বৃদ্ধি করে পুরস্কার প্রাপ্তির আশার উৎসবে ব্যস্ত সরকার। গণবিরোধী নীতির কারণে ইতিহাসের রঙ্গমঞ্চে আওয়ামী লীগ বরাবরেই খলনায়কের ভুমিকায় অবর্তীন হয়েছে। এসময় মহানগর দক্ষিন বিএনপির সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেলের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় মিথ্যা মামলা দায়েরের নিন্দা জানিয়ে তা প্রত্যাহারের দাবি জানান রিজভী।

 দেশে চালের মূল্য ‘আকাশচুম্বি’ উল্লেখ করে এ ব্যাপারে সরকারের ব্যর্থতার সমালোচনা করেন রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, মন্ত্রীদের বাগাড়ম্বর বক্তব্যের পরও চালের মূল্য কমেনি। পাইকারি বাজারের ২/১ টাকা কমলেও খুচরা বাজারে চালের দাম দাম এখনো কমেনি।ফলে ভোক্তা পর্যায়ে চালের দাম কমলেও খুচরা বাজারে চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে নামছে না। শুধু তাই নয়, পেঁয়াজ, আদার, রসুন, কাঁচা তরিতরকারীসহ নিত্যপণ্যের দাম এখন আকাশচুম্বি। ৬০ টাকার নিচে কোনো তরিতরকারী কেনা যাচ্ছে না। কাঁচা বাজারে সকল পণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে বাজারে আগুন জ্বলছে। চাল-ডাল-লবন-তেলসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে মানুষের জীবন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ