বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

কবিতা

শরণার্থী
নয়ন আহমেদ

হাতগুলো রুটির মতোন বেলছে হাহাকার !
একদা ছিলো গার্হস্থ্য-ভূগোল ; সূর্যাবৃত মানচিত্র।
শ্রমপাঠ, মাঠে মাঠে সুদৃঢ় রোপিত ভবিষ্যৎ ;
বাস্তুতন্ত্রের মতো আবেষ্টনকারী রূপকথা।

ভিক্ষালব্ধ প্রেমে কি জীবন বাঁচে? বাঁচে!

কাঁদে সব ঈষৎ নাসিক্য আহলাদ!


আমাদের সময়
জাকির আজাদ

আমাদের চারিদিকে এখন  অসভ্য সব চিৎকার
কোথাও কোনো আহবান নেই  একবার।
সুন্দরের জন্য ,
সৌন্দর্যের জন্য,
সুষমার জন্য,
লালিত্যের জন্য,
বেশুমার অশ্লীল-অশ্রাব্য সব চিৎকার
ভালো-মন্দ কোনো কিছুর বিচারের না দিয়ে ছাড়।

আমাদের চারিদিকে এখন দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ভরাট শব্দের সমাহার
যতোসব অযোগ্য শব্দাবলিতে তৈরি হচেছ প্রেক্ষাপট তার।
নষ্টামীর জন্য,
নগ্নতার জন্য,
কুৎসিতের জন্য,
জঘণ্যতার জন্য,
আমাদের সমাজ,সামাজিক দায়,কৃষ্টি আচার, বিপুল লোকালয়
বিশ্বাসঘাতকতা, মিথ্যাচার, নোংরামী দিয়ে নষ্টরা করেছে জয়।

আমাদের ফেরার উপায় কই!
কেবলই শুদ্ধতার কথা বলে হট্টগোল আর হইচই।


রোহিংগারা
নোমান সাদিক

রোহিংগারা মাড়িয়ে যাওয়া গোলাপ ফুলের নাম
রোহিংগারা পদ্মাবতীর মলিন চিঠির খাম
রোহিংগারা অভিমানে হারিয়ে যাওয়া তারা
রোহিংগারা হোসেনের রক্তেরই এক ধারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ