মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে নীলফামারী-১ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ

নীলফামারী সংবাদদাদা: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে নীলফামারী-১ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে।
এ আসনে আওয়ামী লীগের একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী তৃণমূলে নেতাদের সমর্থন পেতে নানা তৎপরতা শুরু করেছেন। জাতীয় নির্বাচনের ঘনঘটা শুরু হওয়ায় নির্বাচনী মাঠেও প্রভাব পড়েছে প্রার্থীদের পদচারণা।
বিএনপিসহ অন্য দলের  কেউ এখনও প্রকাশ্য না হলেও ক্ষমতাসীন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরাই বিভিন্ন ভাবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে।
ব্যানার ফেস্টুন ছাপিয়ে জনগণকে শুভেচ্ছা জানিয়ে জানান দিচ্ছে তাদের আগমনী বার্তা। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই দীর্ঘ হচ্ছে এই আসনে প্রার্থী তালিকা। সম্ভাব্য প্রার্থীরা মনোনয়ন পেতে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ ও লবিং ছাড়াও মাঠ পর্যায়ে গণসংযোগ করে চলছেন।  এ আসনে প্রবীণ, নবীন ও বহিরাগতরাও মনোনয়ন চাইছেন।
নীলফামারী জেলার ডোমার ও ডিমলা উপজেলা নিয়ে গঠিত নীলফামারী -১ আসন। এ আসনে আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে  যারা মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন তারা হলেন আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার, ডোমার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক খায়রুল ইসলাম বাবুল, সাবেক রাষ্ট্রদুত ও নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল হোসেন সরকার, সুপ্রিম কোর্টের সহকারী এর্টনী জেনারেল ও বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের সদস্য এ্যাডভোকেট মনোয়ার হোসেন,বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনিবাহী সংসদের উপ-সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক সরকার ফারহানা আখতার সুমি, বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রজন্ম বিষয়ক সম্পাদক ও নীলফামারী জেলা শাখার সভাপতি  জেব্দ্যাতুল তারেফিন তারেক ও নীলফামারী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের উপদেষ্টা  ব্যারিস্টার ইমরান কবির চৌধুরী জনি।
বিএনপির সম্ভ্যাব্য প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন শাহরিন ইসলাম  চৌধুরী তুহিন কিন্তু তার বিরুদ্ধে মামলা থাকায় দেশের বাইরে অবস্থান করছেন সে ক্ষেত্রে নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হতে না পারলে তার বাবা রফিকল ইসলাম চৌধুরী এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে জানিয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। ২০ দলীয় জোটের শরীক জামায়াতে ইসলামী স্বতন্ত্র  হিসেবে এ আসনে প্রার্থী দিবেন বলে জানা গেছে। সে ক্ষেত্রে জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি আব্দুস ছাত্তার এ আসনে প্রার্থী হতে পারেন। অন্য দিকে ২০ দলীয় জোটের আর এক শরীক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ন মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী এ আসন থেকে জোটের প্রার্থী হওয়ার জন্য প্রচার-প্রচারনা শুরু করে দিয়েছেন। এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন ২০ দলীয় জোটের শরীক বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি(ন্যাপ-ভাসানী) চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি। জাতীয় পাটির সম্ভ্যাব্য প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন  জেলা জাতীয় পাটির সদস্য ও নীলফামারী-১আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জাফর ইকবাল সিদ্দিকী । গত নির্বাচনেও তিনি প্রাথী হয়েছিলেন।
মনোনয়ন প্রত্যাশী ও সম্ভাব্য প্রার্থীরা রমজাম মাস থেকে প্রচার-প্রচারণা শুরু করে দিয়েছে। এখন কেউ কেউ সংবাদ সম্মেলন ও সাংবাদিক এবং সুধীজনদের সাথে মতবিনিময় সভা করে জানিয়ে দিচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশার বার্তা। অনেকে প্রচারণার অংশ হিসেবে ত্রাণ নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন বন্যা দুর্গত এলাকায়।
আশার বাণী শোনাচ্ছেন দল বা জোট তাকে মনোনয়ন দিলে তিনি এলাকার জন্য নিবেদিত প্রাণ হিসেবে কাজ করবেন। আপদে-বিপদে এলাকার গরীব-দুখী মানুষের পাশে থাকবেন। আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তেমন একটা প্রকাশ্যে দোড়ঝাঁপ শুরু না করলেও নিরবে চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণা ও সামাজিক কার্যক্রম।
এ আসনে এখন পর্যন্ত ১৩ জন প্রার্থীর আনাগোনা  দেখা গেলেও এই তালিকা আরো দীর্ঘ হতে পারে বলে দলীয় নেতা কর্মীদের মুখে শোনা যাচ্ছে। ভোটারদের  মধ্যেও চলছে নানা আলোচনা, কে কোন দলের মনোনয়ন পাচ্ছেন, কে হলে ভালো হয় তা নিয়েও চলছে বিশ্লেষণ। তবে প্রবীণ নেতা নাকি নবীনদের দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে তা নিয়েও জোর আলোচনা চলছে। 
নীলফামারী জেলা জামায়াতের আমীর আব্দুর রশীদ জানান গেল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তাদের প্রার্থী অল্প ভোটে হেরেছে। আগামী নির্বাচনে এ আসন থেকে জোটগত ভাবে  জামায়াতের প্রার্থী দেয়া হয় এবং  নির্বাচন যদি সুষ্ট ও নিরপেক্ষ হয় তাহলে তাদের প্রার্থী বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে।
আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার জানান দল তাকে মনোনয়ন দিলে তিনি আবারও নির্বাচিত হবেন ।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী জানান নীলফামারী-১ আসনে তার বংশগত ও পারিবাবির ঐতিহ্য রয়েছে। এলাকার মানুষের সুখে-দুখে সে ও তার পরিবার দীর্ঘ দিন ধরে পাশে রয়েছেন। ২০ দলীয় জোট থেকে তাকে মনোনয়ন দেয়া হলে তিনিও শতভাগ জয়ের আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ