শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

উলিপুরে মাদ্রাসা শিক্ষকের মানবেতর জীবন-যাপন

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা: কুড়িগ্রামে এক মাদ্রাসা শিক্ষকের জন্ম তারিখ ভুলের কারণে এমপিও সীটে নাম বাদ পরে বেতন-বোনাস বন্ধ হয়েছে। ফলে, ৫ মাস থেকে বেতন বঞ্চিত শিক্ষক পরিবারটি মানবেতর জীবন-যাপন করছে। ভুল সংশোধনের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একাধিকবার আবেদন করেও কোন সুফল পাননি।
জানাগেছে, জেলার নাজিমখান মহিলা দাখিল মাদ্রাসার এবতেদায়ী জুনিয়র মৌলভী শিক্ষক আবুল হোসেন গত ১লা নভেম্বর/৮৮ ইং থেকে শিক্ষকতা করে আসছে। দাখিল পরীক্ষার মূল সনদপত্র ও জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী জন্ম তারিখ ১মে/১৯৭০ ইং । সে মোতাবেক ফেব্রুয়ারী/৯৯ ইং এমপিও সীটে অন্তর্ভূক্ত হয়ে যথা নিয়মে বেতন-ভাতাদির সরকারী অংশ পেয়ে আসছিলেন। সেই সময়ে উক্ত মাদ্রাসার বরখাস্তকৃত সুপার হারুন-অর রশিদের খেয়ালিপনায় ভুল বসত ১লা মে/১৯৭০ইং এর স্থলে ২মার্চ/১৯৫৭ইং এমপিও সীটে সংযুক্ত হয়। ২০১৬ সালের জানুয়ারী ও নভেম্বর মাসে দু’বার সংশোধনী দাখিল করা হয়। যাহা অদ্যাবদি সংশোধিত হয়নি। যার কারণে তিনি ৫ মাস ধরে বেতন-ভাতাদি উত্তোলন করতে পারছেন না।
ভুক্তভোগী শিক্ষক আবুল হোসেন জানান, বেতন বন্ধ হওয়ায় বর্তমানে ৬ সদস্যের পরিবার পরিজন নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে দিনাতিপাত করছে।
ছেলে-মেয়েদের পড়া-লেখার খরচ  যোগান দিতে না পারায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে।
এ ব্যপারে জেলা শিক্ষা অফিসার খন্দকার আল আজাদ জানান, শিক্ষক আবুল হোসেনের জন্ম তারিখ সংশোধন পূর্বক পুন: এমপিও ভূক্তিকরণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট মহাপরিচালকের নিকট পত্র প্রেরণ করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ