মঙ্গলবার ১১ আগস্ট ২০২০
Online Edition

শান্তি ও সমাধানের পথে মিয়ানমারকে এগিয়ে  আসতেই হবে   - ব্রিটিশ হাইকমিশনার

 

স্টাফ রিপোর্টার : ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেক বলেছেন, শুধু মানবিক সহায়তা নয়, রোহিঙ্গা সমস্যার দীর্ঘমেয়াদী রাজনৈতিক সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকবে বৃটেন। দীর্ঘমেয়াদে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া এবং শান্তি ও সমাধানের পথে মিয়ানমারকে এগিয়ে আসতেই হবে।

গতকাল শনিবার নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালেতিনি একথা জানান। বাংলাদেশ ও মিয়ানমারে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের জন্য বৃটেন সম্প্রতি দুই কোটি ৫০ লাখ পাউন্ড সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে।

ব্লেইক বলেন, বৃটেন রাখাইন সংকটের একটি টেকসই সমাধান এবং আনান কমিশনের প্রতিবেদনের সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন চায়। রাখাইনে কি ঘটেছে তা তদন্ত করতে জাতিসঙ্ঘ মানবাধিকার কমিশনের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনকে সহায়তা দেবে বৃটেন। রাখাইনে সহিংসতা সাথে জড়িত অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনা সংকটের দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য জরুরি।

হাইকমিশনার বলেন, সম্প্রতি কক্সবাজারের কুতুপালং সফরকালে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের দুঃসহ অভিজ্ঞতার কথা শুনেছি। বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নিরাপদে এবং অধিকার নিয়েই নিজ বাসভূমিতে ফিরতে পারা উচিত। দীর্ঘমেয়াদে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া এবং শান্তি ও সমাধানের পথে মিয়ানমারকে এগিয়ে আসতেই হবে।

 রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি আন্তর্জাতিক সমর্থন ও সহানুভূতি বাড়ছে উল্লেখ করে ব্লেইক বলেন, চলতি মাসে জাতিসঙ্ঘ সাধারণ অধিবেশনে বাংলাদেশের অন্যান্য বন্ধু রাষ্ট্রের পাশাপাশি রোহিঙ্গা ইস্যুতে বৃটেনও সক্রিয় থাকবে।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সাথে বৈঠক করবেন। সম্প্রতি জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন বন্ধের আহ্বান জানিয়ে ব্রিটেন ও সুইডেন আলোচনার প্রস্তাব উত্থাপন করেছিল। এর পরিপ্রেক্ষিতে রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমারে প্রতি আহ্বান জানানোর পাশাপাশি উদ্বাস্তুদের আশ্রয় দেয়ার বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করে নিরাপত্তা পরিষদ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ