বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

খুলনার তিনটি শহীদ মিনারের বেহাল দশা!

খুলনা অফিস : বেহাল দশা নগরীর তিনটি শহীদ মিনার। ফেব্রুয়ারি মাস গেলেই অবহেলা আর অযত্নে পরে থাকা এ মিনারগুলোতে ধূলো-ময়লার সাথে যোগ হয়েছে রাজনৈতিক দলের পোস্টার ও ফেস্টুন। পাশাপাশি মানুষের মলমূত্র,  ডাস্টবিন ও ময়লার স্তুপ। ফুলবাড়ীগেট, মানিকতলা ও দৌলতপুরের এ তিন শহীদ মিনার দেখার যেন নেই কোন কর্তৃপক্ষ।
২১ শে ফেব্রুয়ারি এলে দিবসকে ঘিরে জেগে ওঠে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ ভাষা শহীদদের। দিনটি স্মরণে খালি পায়ে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান আবাল বৃদ্ধ শিশু ও নারীসহ সর্বস্তরের মানুষ। দিবস শেষ হলেই কদর কমে শহীদ মিনারের। অবহেলা আর অযত্নে, ময়লার ডাস্টবিন ও মলমূত্রের স্থানে পরিণত হয় নগরীর এ সকল শহীদ মিনারগুলো। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মানিকতলা জুনিয়র ট্রাক ড্রাইভার সমবায় সমিতির অফিসের সামনে শহীদ মিনারটির উপরে অপ্রয়োজনীয় বস্তা, ময়লা ট্রাকের বাম্পার, মানুষে মলমূত্র পড়ে আছে। শহীদ মিনারের মত একটা পবিত্র স্থানে এত ময়লা কেন জানতে চাইলে কবির আহম্মেদ নামের এক ট্রাক ড্রাইভার দুঃখের সাথে বলেন, আমি নিজে একবার মানুষের মলমূত্র পরিস্কার করেছি। ২১ ফেব্রুয়ারি এলে ধুয়ে মুছে ফুল দিয়ে সাজানো হয়। কিন্তু এরপর আর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তৃপক্ষের। 
একই চিত্র ফুলবাড়ীগেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে দেখা যায়, ভিতরে সিটি কর্পোরেশনের একাধিক ময়লার গাড়ি। নিচে পড়ে রয়েছে ময়লার স্তুপ। পানির ফোয়ারা থাকলেও দীর্ঘদিন নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। চারপাশে রাজনৈতিক নেতাদের বড় বড় ব্যানার ও ফেস্টুনে শহীদ মিনার ঢেকে আছে।
এ বিষয়ে ২নং ওয়ার্ড কমিশনার সাইফুল ইসলাম বলেন, কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ি রাখার কোন জায়গা নেই। দীর্ঘদিন পানির ফোয়ারাটি নষ্ট হওয়ায় সংস্থাকে এ বিষয় নিরসনে চিঠি দেয়া হয়েছে।
সিটি কর্পোরেশন সূত্র মতে, ফুলবাড়ীগেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটি সাবেক মেয়র তৈয়েবুর রহমানের আমলে প্রায় ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে। এরপর একাধিকবার প্রায় ২৫-৩০ হাজার টাকা ব্যয়ে সংস্কার করা হয়। কিন্তু সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ না হওয়ায় আজ শহীদ মিনারটির বেহাল দশা।
একই চিত্র ফুটে উঠেছে দৌলতপুরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। সেখানেও ময়লা আর্বজনা পরিস্কার হয় না বছরের ১১ মাস। সিটি কর্পোরেশন এস্টেট অফিসার নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, শীঘ্রই যে সকল শহীদ মিনারে ময়লা-আর্বজনার স্তুপ রয়েছে সব পরিস্কার করা হবে।
খুলনা জেলা প্রশাসক আমিন উল আহসান বলেন, নগরীর শহীদ মিনারের অবস্থা বড়ই করুণ। ফেব্রুয়ারি মাস গেলে সকলে এর সম্মানের কথা ভুলে যাই। তবে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সিটি কর্পোরেশন ও জনসাধারণকে সচেতন হতে হবে বলে তিনি মতামত প্রকাশ করেন। তবে শহীদ মিনারে মলমূত্র, ময়লার গাড়ি ও ময়লা আবর্জনা রাখার কথা শুনে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করেন। বিষয়টির কোন প্রকার সত্যতা পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ