শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে  বিএনপি মাঠ গরম  করতে চাচ্ছে -এটর্নি জেনারেল

 

স্টাফ রিপোর্টার : সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে আপিল বিভাগের রায় নিয়ে বিএনপি মাঠ গরম করতে চাচ্ছে। এটা নিয়ে রাজনীতি অনভিপ্রেত। বিএনপি মাঠে রাজনীতি করতে পারছে না, এ কারণে এ রায় নিয়ে মাঠ গরম করতে চাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্টে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন এটর্নি জেনারেল।

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলে রায়ের পর সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল বিষয়ে আইন করার প্রয়োজন আছে কিনা জানতে চাইলে এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, এ সম্পর্কে আমি কোন মন্তব্য করবো না। আইন করা হবে কিনা সেটা সংসদের ব্যাপার। অন্যদিকে রায় প্রকাশের কয়েক দিনের মধ্যে বিচারপতিরা সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলে বৈঠকে বসেছেন এটাও উনাদের ব্যাপার। 

এক প্রশ্নের জবাবে এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, পঞ্চম সংশোধনী বাতিলের মামলার রায়ে আপিল বিভাগ যে রায় দিয়েছিল সেখানে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল কিন্তু রিভিউ এর আদেশে সব বাতিল করে দেয়া হয়েছে। সমস্ত আইন নতুন করে করতে বলা হয়েছিল।

তিনি বলেন, সংসদ আইন প্রণয়ন করবে এবং সংবিধান হলো সবার উপরে। যে কথাটি আমি বারে বারে বলেছি। সংবিধানের আদি কোন অনুচ্ছেদ সেটার ভাল কিংবা মন্দ সে সম্পর্কে কোন বিচার বিভাগ কিছু বলতে পারবে না।

তিনি বলেন, আদালত ক্ষমতাপ্রাপ্ত হবেন তখনই যখন সংবিধান সংশোধন হয়। যেখানে মূল সংবিধানে ফিরে যাচ্ছি। সংবিধানের সংশোধনীর দ্বারা মূল সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদে ফিরে যাওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে এবং আমি এ কথাও বার বার বলেছি, যে আইন হবে সে আইনে বিচার বিভাগের স্বাধীনতার জন্য যত রকম কিছু সেফ গার্ড থাকা দরকার সেটা থাকবে এবং সে আইনটাকে অসাংবিধানিক ভাল মন্দ সব বিচার করার ক্ষমতা আদালতের থাকবে। কিন্তু মূল সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদকে কোন আদালত বিচার করার ক্ষমতা রাখে না।

তিনি বলেন, রিভিউ রায়ে ছিল মার্শাললতে জারি করা সমস্ত ফরমান আইন এগুলো অবৈধ। তবে রাষ্ট্রপরিচালনার কাজে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত বৈধতা দেয়া হলো। তারপর আর না।

তিনি বলেন, আদালত আজ যখন সকালে বসেছিল সকাল নয়টায় তখন বিএনপিপন্থী কয়েকজন আইনজীবী বারের সভাপতি সম্পাদকও ছিলেন। তারা কতগুলো সংবাদপত্র নিয়ে আদালতর দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেছেন। বিচারপতি খায়রুল হক সাহেবের এই ষোড়শ সংধোনীর বিষয়ে তিনি যে মন্তব্য দিয়েছেন তার বিষয়ে ওনারা বলতে চেয়েছেন। এতে আদালত অবমাননা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি বলেছেন, সুপ্রিম কোর্টের রায় নিয়ে এই ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে কেউ যাতে কোন রাজনীতি না করে। কেউ যাতে এটা রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার না করে। উনি বলেছেন, রায় দিয়েছেন এটা আদালতের বিষয়। যারা রাজনীতি করবে এটা তাদের বিষয় হতে পারে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ