মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

আঙিনা-ছাদে গাছ লাগালে ১০ শতাংশ হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফ ..........ডিএসসিসি মেয়র

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা শহর সবুজায়নে নিজ বাড়ির আঙিনা ও ছাদে বেশি করে গাছ লাগানোর আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। বাড়ির আঙিনা ও ছাদে বেশি করে গাছ লাগালে মালিকদের ১০ শতাংশ হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফ করা হবে বলে ঘোষণা দেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বামীবাগের মিতালী বিদ্যাপীঠ উচ্চবিদ্যালয়ে ‘সবুজ ইশকুল গড়ি’ অভিযানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাঈদ খোকন এ কথা বলেন। ‘সবুজ স্কুল গড়ি, দেশটাকে পরিষ্কার করি’ শ্লোগানে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সামাজিক সংগঠন ‘পরিবর্তন চাই’। এ অভিযানের অংশ হিসেবে মিতালী বিদ্যাপীঠসহ রাজধানীর তিনটি বিদ্যালয় ও সারা দেশে আরও ৯৭টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সুন্দর ও টেকসইভাবে পরিচ্ছন্ন করা হবে।

সাঈদ খোকন বলেন, ‘আমরা ঢাকা শহরের পরিবর্তন চাই। এই চাওয়াকে পাওয়াতে পরিণত করতে হবে। এ জন্য নগরের প্রত্যেককে একযোগে এগিয়ে আসতে হবে। নিজ নিজ বাড়ির আঙিনা ও ছাদ এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বেশি করে গাছ লাগাতে হবে। তা করা হলে বাড়ির মালিকদের ১০ শতাংশ হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফ করা হবে। অর্থাৎ পরোক্ষভাবে গাছ লাগানোর টাকা দেবে সিটি করপোরেশন।’

ডিএসসিসির মেয়র বলেন, দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকা সবুজায়ন ও শিশু-কিশোরদের আনন্দ-বিনোদনের জন্য ‘জল সবুজে ঢাকা’ শীর্ষক এক প্রকল্পের মাধ্যমে ১২টি মাঠ ও ১৯টি পার্ক আধুনিকায়নে সংস্কারকাজ চলছে। এতে বয়স্ক ব্যক্তিদের সকাল-বিকেল হাঁটা বা বেড়ানোর ব্যবস্থাও করা হচ্ছে। আগামী বছরের জুনে এই সংস্কারকাজ শেষ হবে। তিনি বলেন, নগরের প্রতিটি রাস্তার সড়ক বিভাজকে গাছ লাগিয়ে সৌন্দর্যবর্ধন করা হয়েছে।

‘পরিবর্তন চাই’-এর চেয়ারম্যান ফিদা হক বলেন, সবুজায়নের এ অভিযানের অংশ হিসেবে প্রতিটি বিদ্যালয়ে পর্যাপ্তসংখ্যক তিন রঙের ডাস্টবিন দেওয়া হবে। ময়লার ধরন অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন ডাস্টবিনের ব্যবহার শিক্ষার্থীদের শেখানো হবে। এর পাশাপাশি বিদ্যালয়ের আঙিনায় একটি করে কম্পোস্ট প্ল্যান্ট স্থাপন করা হবে। যেখানে শিক্ষার্থীরা পচনশীল ময়লা দিয়ে কম্পোস্ট সার তৈরি করবে। পরে এই সার দিয়ে বিদ্যালয় আঙিনায় ফুলের বাগান করা হবে। এ ছাড়া বিদ্যালয়ের মাঠে ঘাস লাগানো, পরিচর্যা ও দেয়াল রং করা হবে। বছরব্যাপী অভিযান শেষে সফল বিদ্যালয়গুলোকে সবুজ ইশকুল সার্টিফিকেট দেওয়া হবে।

অনুষ্ঠানে মিতালী বিদ্যাপীঠের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ফৌজিয়া মতিন, অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের কর্মকর্তা ফারাহ কবীর, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবরার আনোয়ার বক্তব্য দেন।

বর্ষা শেষে সব রাস্তা মেরামত 

চলতি বর্ষা মৌসুম শেষ পুরান ঢাকার সব রাস্তা মেরামত করার কথা জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন। তিনি বলেন, ‘পুরান ঢাকার উন্নয়নের জন্য চেষ্টা করছি। বর্ষা মৌসুম শেষ হলে সব রাস্তা মেরামতের কাজ শুরু করা হবে।’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাতবার্ষিকী ও শোক দিবস উপলক্ষে গতকাল বিকেলে পুরান ঢাকার সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাঈদ খোকন বলেন, ইতোমধ্যে পুরান ঢাকার প্রায় ৮৫ ভাগ রাস্তা আলোকিত করেছি। চিকুনগুনিয়া রোগের সমাধানের জন্য প্রতিটি ঘরে ঘরে ওষুধের ব্যবস্থা করেছি। যারা হটলাইনে কল করেছেন তাদের বাড়িতে ডাক্তার পাঠিয়েছি এবং ফ্রি ওষুধের ব্যবস্থাও করেছি। এখন যারা কল করছেন তাদেরকেও সেবা দিয়ে যাচ্ছি।

আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কথা বলেন মেয়র। বলেন, বাঙালি জাতির স্বাধীনতার বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কখনোই করো সঙ্গে আপোষ করেননি। নিজের পরিবারের দিকে না দেখে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীনতার জন্য নিজের জীবনকে বিলিয়ে দিয়েছেন।

কলেজ শাখা ছাত্রলীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় মেয়র বলেন, ব্যক্তি মুজিবের মৃত্যু হতে পারে, কিন্তু আদর্শের মৃত্যু হতে পারে না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শিত হয়ে তারই কন্যা দেশকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য সাঈদ খোকন বলেন, ‘রাজনীতি করবেন ঠিক আছে। কিন্তু মা-বাবার স্বপ্নকে নষ্ট করে কারো জন্যই রাজনীতি করা ঠিক হবে না। কারণ মা-বাবার স্বপ্ন আপনাকেই পূরণ করতে হবে।’

মেয়র বলেন, রাজনীতির চোরাবালিতে পা দেয়া যাবে না। যে চোরাবালিতে পা দিলে দেশ ও দেশের মানুষের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে এমন চোরাবালিতে পা দিলে নিজের ও দেশের উভয়ের ক্ষতি হবে।’

কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সোহেল রানার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন সোহরাওয়ার্দী কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস, উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক আবুল হোসেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন প্রমুখ।

সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ খান শুভের সঞ্চালনায় পুরান ঢাকার বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলর, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের শিক্ষক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের বিভিন্ন নেতাকর্মী, শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা আলোচনায় অংশ নেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ