মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

৮১ শিশু-কিশোরকে পুরস্কৃত করলো শিশু একাডেমি

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি আয়োজিত পাঁচ দিনব্যাপী কর্মসূচি পালন গতকাল বৃহস্পতিবার শুরু হয়েছে। রাজধানীতে শিশু একাডেমি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ওপর রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ এবং একাডেমির বই বিক্রয়কেন্দ্র উদ্বোধনীর মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠামালা শুরু হয়।

শিশু একাডেমি এবার অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের লেখা গ্রন্থ ‘মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ’ বইটি অবলম্বনে ‘বঙ্গবন্ধুকে জানো, বাংলাদেশকে জানো’ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগিতা দেশব্যাপী আয়োজন করে। এবার সারাদেশে সাড়ে তিন হাজার শিশু-কিশোর এতে অংশ নেয়। সারাদেশে শিশু একাডেমির ৭১টি কার্যালয়ের মাধ্যমে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এতে রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ৭১ জন এবং বঙ্গবন্ধুর ওপর কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ১১জন শিশু-কিশোরসহ মোট ৮১ জনকে পুরস্কার প্রদান করা হয়।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশু বিয়ষক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি রেবেকা মমিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম ও অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। শিশু একাডেমির সভাপতি কথাশিল্পী সেলিনা হোসেনের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন একাডেমির পরিচালক আনজির লিটন। অতিথিরা সম্মিলিতভাবে শিশু একাডেমির গেটের পাশে একাডেমির বই বিক্রয় কেন্দ্র উদ্বোধন করেন। পরে ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল পুস্তক বিক্রয় কেন্দ্রে শিশুদের সাথে আড্ডায় যোগ দেন।

প্রধান অতিথি অভিবাবকদের তাদের সন্তানদের বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম সম্পর্কে আরও জানার সুযোগ করে দেয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, শিশু-কিশোরা বঙ্গবন্ধুকে বিশেষভাবে জানতে পারছে এই একাডেমির মাধ্যমে। এ বছর সারাদেশের বিপুলসংখ্যক শিশুরা প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। এটা অভিভাবকদের সচেতনতার কারণে হয়েছে।

মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, যতই দিন যাচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে জানতে চাচ্ছে শিশু-কিশোরা। বঙ্গবন্ধুর সত্যিকারের ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে শিক্ষা দিতে তিনি বড়দের প্রতি আহবান জানান।

সেলিনা হোসেন বলেন, শিশু-কিশোররা যতই বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে পারবে-তাদের জ্ঞান ততই সৃষ্টিশীল হবে। এই উদ্দেশেই জাতীয় শোক দিবসে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালা এবারও একাডেমির সারাদেশের কার্যালয়গুলোতেও একযোগে পালিত হচ্ছে।

আনজির লিটন জানান, শিশু একাডমীতে বই বিক্রয় কেন্দ্র ছিল না। এটি প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে সকল মহলের চাহিদা পূরণ হলো। একাডেমি থেকে এ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর ওপর ২৬টি বই প্রকাশিত হয়েছে। এসব বইসহ একাডেমি থেকে প্রকাশিত কয়েকশত বই এই বিক্রয়কেন্দ্রে প্রদর্শন ও বিক্রয় করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ