মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

আওয়ামী লীগই প্রথম গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে -মঈন খান

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী সম্মিলিত নাগরিক দল আয়োজিত বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মিঞা মোহাম্মদ সেলিমের স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান অভিযোগ করে বলেছেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে প্রথম এই আওয়ামী লীগই হত্যা করেছে। কোন স্বৈরশাসক নয়। আইন যখন তার নিজস্ব গতিতে চলছে তখন আওয়ামী লীগ আদালতকে বিতর্কিত করছে। যা জাতীর জন্য লজ্জাকর।

 গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে সম্মিলিত নাগরিক দল আয়োজিত মরহুম মিঞা মোহাম্মদ সেলিমের স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। স্মরণ সভায় জাতীয়তাবাদী নাগরিক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, মিয়া মো: সেলিমের সহ ধর্মীনী রুবাইয়া সেলিম এবং সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল আলী মৃধা প্রমুখ।

মঈন খান বলেন, এ আওয়ামী লীগ বলে শহীদ জিয়া নাকি এ দেশে মার্শাল ‘ল’ এনেছিলেন এটা সম্পর্ণ মিথ্যা। আজকে এ নতুন প্রজন্মকে সঠিক ইতিহাস জানতে হবে। তিনি দাবি করেন এ সরকার তরুণ প্রজম্মকে মিথ্যা ও ভুল ইতিহাস শিক্ষা দিচ্ছে।

তিনি মরহুম মিঞা মো: সেলিম সর্ম্পকে বলেন, তিনি জাতীয়তাবাদী দলের কর্মী ছিলেন এটাই তার বড় পরিচয়। তার বিভিন্ন সময়ে আন্দোলন সংগ্রামের যে অবদান রেখে গেছেন স্মরণ সভায় সে সব তুলে ধরেন।

মঈন খান আরও বলেন যে দেশে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নেই সেই দেশ বিশ্বের বুকে সভ্য দেশ হতে পারে না। তিনি মরহুম সেলিমের আদর্শের কথা তুলে ধরে নেতা কর্মীদের উদ্দ্যেশ্য করে বলেন, আমরা দেশনেত্রীর ডাকে ৯০ এর আন্দোলনে সাড়া দিয়ে যেভাবে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে এনেছিলাম সেভাবে আবারও দেশনেত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে পুনরায় আন্দোলনের মাধ্যমে এই দেশে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে। 

মঈন খান অভিযোগ করে বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে প্রথম এই আওয়ামী লীগই হত্যা করেছে। কোন স্বৈরশাসক নয়। আইন যখন তার নিজস্ব গতিতে চলছে তখন আওয়ামী লীগ আদালতকে বিতর্কিত করছে। যা জাতীয় জন্য লজ্জাকর। তা আইন বিভাগ নিয়ে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। তাদের এই ষড়যন্ত্র রুখতে আমাদের রাজপথে থাকতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ