শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

কবিতা

রুবাইয়াত

কাজী রিয়াজুল ইসলাম

 

এক

সেদিন যখন গভীর রাতে হঠাৎ করে নিবল বাতি,

অন্ধকারে কি এক ভয়ে মনের দুঃখে শুধুই কাঁদি।

বলি সাকী- এতদিন কী সুরা তুমি পান করালে,

হায় এখনো জীবন-জমিন রয়েই গেল অনাবাদী।

 

দুই

ষড় ঋতু নিয়ে প্রভুর লক্ষ-কোটি আজব খেলা,

এসব নিয়ে কখনো কি ভাবি আমরা একটা বেলা?

প্রভুকে আজ চিনতে হলে সৃষ্টি নিয়ে ভাবতে হবে

চারদিকে ভাসিয়ে দিয়ে স্বচ্ছ হৃদয়-মনের ভেলা।

 

ফিরে আসা স্মৃতি

রিয়াজ উদ্দিন

 

কতবার বলেছি!

তোমার হিসেবের হালখাতা

কবেই বন্ধ করে দিয়েছি,

আমার স্মৃতির পাতায়

তোমার আনাগোনা একদম নিষিদ্ধ,

কাঠের ফ্রেমে ঝুলে থাকা

তোমার অবয়ব

আমার জন্য অবৈধ!

তবু কেন,

বৃষ্টির একটু রিমঝিম ছন্দে

কিংবা জানালার ফাঁক দিয়ে

চোখে পড়া কিঞ্চিত জ্যোৎস্নার আলোয়

তুমি এসে আমার স্মৃতির দোরগোড়ায় করাঘাত করো!

কেন জীবনের হিসেবটা অবিরত প্রশ্নবিদ্ধ করে দাও!

তুমিহীন আমিতো

জীবনের চৌরাস্তায়

বিনিদ্র রজনীর আবছা আলোয়

বেশ ভালোই আছি, বেশ ভালোই আছি......।

 

বনফুল কাব্য-৬

শাহীন  সৈকত

 

তাকে ভালবাসা আমার অনেক বেশী ভুল ছিল

এই জীবনে সকল ভুলের সেটাই বুঝি মূল ছিল

ভুলের উপর পরলে আঘাত আমার টনক নড়ছিল

সেই আঘাতে ভালবাসা উপড়ে যাওয়া ঠিক ছিল

কে যে দিল এমন আঘাত নামটা যে তার ভুল হল

এমন ভুলের মাশুল দিতে আমার অনেক বেগ হল

নষ্ট হওয়া সেই জীবনটা কিভাবে যে নীল হল

নীলের নেশায় বুঁদ হওয়া সেই নষ্ট জীবন ফুল হল

পুস্প প্রেমে মত্ত হওয়া নষ্ট জীবন কি পেল?

পুস্পিত এক জীবন, সাথে, দারুন একটা কূল পেল।

 

 

বোধের স্বপ্নগুলো

মোহাম্মদ ইসমাইল

 

আমার বোধের স্বপ্নগুলোকে তোমরা মাড়িয়ে যেও না;

যা কিছু অসত্য আর জীবনের বিরুদ্ধ চেতনা

আজ ‘সত্যি’ ‘সত্যি’  আমি সে বৃত্তাবলয় থেকেÑ

স্বপ্নের দিগন্ত প্রসারি ভেবে শুধুই বেরিয়ে আনতে চাই এই নিজেকে!

আমার আমি আর আমার বোধের ভিতরে রচে যাওয়া

আমারই আমিত্বের সমস্ত খাবি খাওয়া

এই হৃদয়ের যুদ্ধে যেন সে কোনোমতে হাহাকার না করে;

ক্ষমতার অস্থিরতা ফুৎকারে আজ উড়িয়ে যাক

ভালবাসা আর মনুষ্যত্বের জোয়ারে!

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ