সোমবার ১৩ জুলাই ২০২০
Online Edition

রাজশাহীর সেফহোমে বগুড়ার মা-মেয়ে

রাজশাহী অফিস : বগুড়ায় আওয়ামী শ্রমিক লীগ নেতার ধর্ষণের শিকার ছাত্রীকে নিরাপত্তার জন্য সরকারি সেফহোমে এবং তার নির্যাতিত মাকে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে আনা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে তাদের রাজশাহীতে আনা হয়।

এর আগে গত সোমবার সকালে মা-মেয়েকে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়ার পর দুপুরের দিকে পুলিশ তাঁদের বগুড়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত-১ এবং শিশু আদালতের বিচারক ইমদাদুল হকের এজলাসে হাজির করে। এরপর নির্যাতিত ছাত্রী ও তার মায়ের নিরাপত্তার ব্যাপারে আদালতের সিদ্ধান্ত চায় পুলিশ। নারী ও শিশু আদালতের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মা-মেয়েকে হাজির করা হয়। আদালতের আদেশের পর বিকেলেই মেয়েকে রাজশাহী সেফহোমে এবং মাকে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হয়। এরপর নির্যাতিত মাকে রাজশাহী নগরীর শাহমখদুম থানা চত্বরে অবস্থিত ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে এবং ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার মেয়েকে পবার নওহাটায় সেফ হোমের তত্বাবধায়কের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়। প্রসঙ্গত, গত ১৭ জুলাই বিকেলে ওই ছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন বগুড়ার শহর শ্রমিক লীগের নেতা তুফান সরকার। পরে তুফান সরকারের স্ত্রী আশা সরকার এবং তাঁর বড় বোন নারী কাউন্সিলর এবং তুফানের ক্যাডাররা ধর্ষণের শিকার মেয়েটি ও তার মায়ের ওপর নির্যাতন চালান। এরপর দুজনেরই মাথা ন্যাড়া করে দেন। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর মা বাদী হয়ে গত ২৮ জুলাই রাতে মামলা করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ