রবিবার ০৯ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ছুরিকাঘাতে এক গৃহবধূ নিহত ॥ আটক নেই

রামপাল (বাগেরহাট) সংবাদদাতা: রামপালে নিজের পুত্র সন্তানের সাথে দেখা করতে গিয়ে সাবেক স্বামীর উপর্যপুরি ছুরিকাঘাতে খাদিজা বেগম (২৬) নামের এক যুবতী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় রামপাল সদরের পেড়িখালী-মোংলা মেইন সড়কের পেড়িখালী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন দাউদ হোসেনের বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা ওই যুবতীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে রামপাল থানা পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে ঘাতক সাবেক স্বামী জাকিরকে ধরতে অভিযান শুরু করে।  নিহতের স্বজন, প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, পেড়িখালী গ্রামের আঃ হানিফের পুত্র জাকির শেখ (৩৫) এগারো বছর পূর্বে উপজেলার ভাগা গ্রামের গোলাম শেখের কন্যাকে বিয়ে করে। বিয়ের পরপরই যৌতুকলোভী স্বামী জাকির, শ্বাশুড়ী তাছলিমা বেগম ও দেবর বোরহান শেখ যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন করে আসছিল। খাদিজা নির্যাতন সহ্য করে একমাত্র  পুত্র সন্তান মোঃ জাবির হোসাইন (৮) কে অবলম্বন করে সংসার করে আসছিল। খাদিজার পিতা গোলাম আলী মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে অনেক টাকা জামাই জাকিরকে দেন। বারবার যৌতুকের খাই মেটাতে তার মেয়েকে নির্যাতন করার ঘটনায় ইতিমধ্যে পাঁচবার শালিস বৈঠক করেন। সর্বশেষ দুই বছর পূর্বে গোলাম আলী তার মেয়েকে ডিভোর্স করিয়ে  বাড়িতে নিয়ে যান। মাঝে মাঝে সাবেক স্বামীর কাছে থাকা পুত্র জাবিরকে পেড়িখালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দেখতে যেতেন তার কন্যা। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় খাদিজা পুত্র জাবিরের জন্য একটি ছাতা, ২ কেজি পেয়ারা, ২ প্যাকেট চিপস্ ও ১০ টি টাকা দিয়ে ফেরার পথে দেখা হয় ঘাতক জাকিরের সাথে। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে জাকিরের কাছে থাকা ছুরি দিয়ে উপর্যুপরি ছুরি দিয়ে গলার বাম পাশেসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে। পুলিশ লাশের সুরতহাল তৈরী করে বাগেরহাট মর্গে প্রেরণের প্রস্তুতি নিচ্ছিল এবং রামপাল থানায় কোন মামলা দায়ের হয়নি। রামপাল থানার ওসি মোঃ বেলায়েত হোসেন সাংবাদিকদের জানান, ঘাতক জাকিরকে ধরার জোর চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ঘাতক জাকিরসহ এ ঘটনার সাথে অন্য কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ