সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০
Online Edition

চট্টগ্রামে ‘বাংলাদেশে ভূমিকম্প জনসচেতনতা’ শীর্ষক সেমিনার

চট্টগ্রাম অফিস: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, বাংলাদেশের বিশাল একটি অংশ ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা। তাছাড়া, দেশের বেশিরভাগ মানুষ ভূমিকম্প সম্পর্কে সচেতন নয়। এজন্য নিয়মিত জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে এ সচেতনতা তৈরিতে আমাদের শিক্ষক-গবেষকদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।তিনি গত ২২ জুলাই   বেলা ১১টায় চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ মিলনায়তনে ডিজাস্টার এন্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন-এর উদ্যোগে ‘বাংলাদেশে ভূমিকম্প জনসচেতনতা’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্য দিচিছলেন। ভিসি আরও বলেন, ভূমিকম্পে আতংকিত না হয়ে সবাই একটু সচেতন হলে এর ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলা করা সম্ভব। তিনি আরও বলেন, কিছু অবিবেচক মানুষের দ্বারা জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করা, নির্বিচারে পাহাড় কেটে বসতি স্থাপন করা, পাহাড়ের গাছাপালা কেটে বিরাণভূমিতে পরিণত করা ইত্যাদি মারাত্মক কার্যকলাপের ফলে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ভূমিকম্প আমাদের ক্ষয়ক্ষতি বাড়িয়ে তোলে। এ প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে বাঁচতে হলে ব্যাপকহারে বনায়ন, নির্বিচারে পাহাড় কেটে বসতি স্থাপন না করা ইত্যাদি কার্যক্রমের মাধ্যমে পরিবেশ বিপর্যয়রোধে সবাইকে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে হবে।   
ডিজাস্টার এন্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন-এর সভাপতি  মোহাম্মদ আবদুস সবুর-এর সভাপতিত্বে এবং চ.বি. ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক   মো. ইকবাল সরোয়ার-এর পরিচালনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চ.বি. ভূগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. ইদ্রিস আলম। সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চ.বি. আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সভাপতি ড.মো. কামাল উদ্দিন  ও বিকেএমইএ প্রধান কার্যালয়ের যুগ্ম সম্পাদক মানিক মিয়া।
প্রবন্ধের ওপর মুখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন বুয়েট-এর অধ্যাপক ভূমিকম্প বিশেষজ্ঞ ড. মেহেদী আহমেদ আনসারী। এছাড়াও আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন পরিবেশ অধিদপ্তর, চট্টগ্রামের পরিচালক জনাব মো. আজাদুর রহমান মল্লিক ও চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মো. মাহফুজুর রহমান। সেমিনারে শিক্ষক-গবেষক এবং বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ