শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

খুমেক কর্মচারী দুলালসহ তিন আসামী কারাগারে : ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন

খুলনা অফিস : বাগেরহাট থেকে দু’জন কলেজ শিক্ষার্থীকে অপহরণের পর চাঁদা দাবির মামলায় খুলনা মেডিকেল কলেজের কর্মচারী (কুক মশালচী) মো. দুলাল হাওলাদার (৪৫) সহ তিন আসামীকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। শনিবার তাদেরকে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ আদালতে সোপর্দ করা হলে মহানগর হাকিম মো. শাহিদুল ইসলাম এ আদেশ দিয়েছেন।    
মামলার বাকী দু’জন আসামী হলো তাওহিদুল ইসলাম নয়ন (২৮) ও রবেল (২৮)। তারা দু’জন মোড়েলগঞ্জের বাসিন্দা। এই চক্রটি আল শাহরিয়ার ও সাবিনা আফরিন নামের দুইজন কলেজ শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে চাঁদার দাবিতে আটকে রেখেছিল। গত শুক্রবার রাত ১০টার দিকে সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশ মেডিকেল কলেজের স্টাফ কোয়াটারে দুলালের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের উদ্ধারসহ জড়িত তিনজনকে গ্রেফতার করেছেন। এ ঘটনায় কলেজ শিক্ষার্থী সাবিনা আপরিন মুন বাদী হয়ে সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন (নং-৩৩)।
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী থেকে জানা গেছে, গত শুক্রবার সকালে জিয়ানগর পিরোজপুরের বাসিন্দা আ. সামাদ শেখের মেয়ে সাবিনা আফরিন মুন (১৯) ও খুলনার কয়রা উপজেলার উত্তর বেতকাশি এলাকার বিএস আবু বক্কর ছিদ্দিকের ছেলে আল শাহরিয়ার (২১) বাগেরহাটের খানজাহান আলী মাজারে ঘুরতে যান। এ সময় বাগেরহাট বাস টার্মিনালে তাদেরকে তাওহিদুল ইসলাম ওরফে নয়ন (২৬) ও রুবেল খান (২৩) নিজেদের র‌্যাব পরিচয় দিয়ে তাদের সাথে থাকা মোবাইল ফোন নিয়ে নেয়। এরপর তাদেরকে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজের স্টাফ কোয়াটারের ৩/সি কুক মশালচী মো. দুলাল হাওলাদারের বাসায় নিয়ে আটকে রাখে। তাদের পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ (চাঁদা আদায়ের) জন্য চাপ সৃষ্টি ও ভয়ভীতি দেয়। একপর্যায়ে কলেজ শিক্ষার্থী আল শাহরিয়ার তাদেরকে টাকা দেয়ার জন্য রাজি হয়ে ব্যবস্থা করার জন্য কিছু সময়ের জন্য বাইরে যেতে চায়। তারা শাহরিয়ারকে বাইরে যাওয়ার জন্য অনুমতি দিলে শাহরিয়ার ঘটনাটি সোনাডাঙ্গা মডেল থানা পুলিশকে অবগত করেন। পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে অভিযান চালিয়ে সেখান থেকে সাবিনা আফরিন মুনকে উদ্ধার এবং ওই তিনজনকে গ্রেফতার করে।
সোনাডাঙ্গা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মমতাজুল হক জানান, আমাদের কাছে খবর আসা মাত্রই অভিযান চালিয়ে মুন নামের মেয়েটিকে উদ্ধারসহ অপহরণের সাথে জড়িত তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে নং-৩৩। গ্রেফতার হওয়া অপহরণকারী তাওহিদুল ইসলাম ওরফে নয়ন বাগেরহাট জেলার মোরেলগঞ্জের চিংড়িখালী এলাকার মৃত আবু জাফরের ছেলে এবং রুবেল খান একই উপজেলার বহরবুনিয়া গ্রামের আব্দুর রহমান খা’র ছেলে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ