বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

আ.লীগকে জনগণ আর ক্ষমতায় আসতে দিবে না -ড. মোশাররফ

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন গতকাল রোববার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে ঢাকাস্থ দাউদকান্দি জাতীয়তাবাদী ফোরাম আয়োজিত ইফতারপূর্ব আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন

স্টাফ রিপোর্টার: আ.লীগকে দেশের জনগণ আর ক্ষমতায় আসতে দিবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। গতকাল রোববার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে ঢাকাস্থ দাউদকান্দি উপজেলা জাতীয়তাবাদী ফোরাম আয়োজিত ইফতার পূর্ব আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, বিএনপিকে বাইরে রেখে ৫ জানুয়ারির মতো আরেকটি নির্বাচনী নাটক মঞ্চস্থ করতে সরকার মরিয়া হয়ে উঠেছে। একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে সরকার সাহস পাচ্ছে না। তারা ইতোমধ্যে বুঝে গেছে, আগামী নির্বাচনে জনগণ তাদের ভোট দিবে না। তাই ৫ জানুয়ারির মত বিএনপিকে বাইরে রেখে নির্বাচনী নাটক করে ক্ষমতায় থাকতে চায়। সেই লক্ষ্যেই সরকার বিএনপি’র নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেফতার নির্যাতন শুরু করেছে। মনে ভীতি সঞ্চারের জন্য নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে। ষড়যন্ত্র ও গ্রেফতার নির্যাতন করে দেশের মানুষকে ধাবিয়ে রাখা যাবে না। শেখ হাসিনার অধীনে এ দেশে একতরফা নির্বাচন করতে দেয়া হবে না। আগামী নির্বাচন হবে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। সেই নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে। ঈদের পর নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থার দাবি আদায়ের আন্দোলনে শরীক হতে সকল জাতীয়তাবাদী শক্তির প্রতি উদাত্ত আহবান জানান বিএনপি’র এই নীতিনির্ধারক নেতা।
 মোশাররফ বলেন, জনগণকে কষ্ট দিয়ে সরকার আনন্দ পায়। মানুষের প্রতি তাদের সামান্যতম দয়া-মায়া নেই। জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলে তাদের কোন জবাবদিহিতা নেই। আ.লীগ বলেছিল, জনগণকে ১০ টাকা কেজি দামে চাউল খাওয়াবে। সেই মোটা চাউল এখন ৫০ টাকা কেজিতে কিনতে গিয়ে মানুষ হিমশিম খাচ্ছে। আবারো গ্যাসের দাম এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য কয়েক দফা বৃদ্ধিতে এমনিতেই মানুষের ত্রাহি অবস্থা। এরই মধ্যে সরকারের ঘোষিত বাজেটে দেশের মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ও গরীব শ্রেণীর মানুষ উদ্বিগ্ন। বাজেটে উন্নয়নের নামে জনগণের ওপর অসহনীয় করের বোঝা চাপিয়ে দিয়েছে। ইতোমধ্যে বাজারে এর প্রভাবে জনজীবন নাভিশ্বাষ হয়ে উঠেছে। এ গণবিরোধী বাজেটে দুর্নীতি উৎসাহিত হবে, চোরাকারবারি ও অর্থপাচার আশংকাজনক বাড়বে।
আয়োজক সংগঠনের সভাপতি এবং কেন্দ্রীয় শ্রমিক দলের সহসাধারণ সম্পাদক মিঞা মো. মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন, বিএনপি’র জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মারুফ হোসেন,  ফোরামের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. নূরুল আমিন ও ড. ইব্রাহীম খলিল, দাউদকান্দি ফোরামের সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন আহমেদ, সহসভাপতি কেএম কামরুল আহছান ও মো. মোশাররফ হোসেন ভূইয়া, বিএনপি নেতা আবুল হাসেম, দেলোয়ার হোসেন মিয়াজী, নূরুল আমিন নাঈম সরকার, মো. আজহারুল হক শাহীন, জাসাস নেতা আরিফ মাহামুদ, যুবদল নেতা ভিপি শাহাবুদ্দিন ভূইয়া, ছাত্রদল নেতা রোমান খন্দকার, দাউদকান্দি ফোরাম নেতা ডা. শাহীদুল হাসান বাবুল এবং দাউদকান্দি ছাত্র ফোরামের সভাপতি শফিউল বাশার প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন, এনামূল হক সফর তালুকদার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ