ঢাকা, মঙ্গলবার 11 August 2020, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, ২০ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

রাঙামাটিতে উদ্ধারকাজ এখনও কঠিন

অনলাইন ডেস্ক: রাঙামাটি প্রতিনিধি)পাহাড় ধসের ঘটনায় নিখোঁজ ব্যক্তিদের খোঁজে রাঙামাটিতে উদ্ধার অভিযান চলছে।  তবে বৃষ্টির কারণে ও কোনও কোনও জায়গায় ১৫ থেকে ২০ ফুট পর্যন্ত মাটির স্তূপ জমে থাকার কারণে উদ্ধারকাজ চালানো এখনও অনেক কঠিন বলে জানিয়েছেন রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক মো. দিদার হোসেন। এখন নিখোঁজের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেই উদ্ধার অভিযান চালানো হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের কন্ট্রোল রূম থেকে জানানো হয়, পাহাড় ধসের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ১০৯ জনে পৌঁছেছে। কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বে নিয়োজিত ম্যাজিস্ট্রেট খন্দকার মোহাম্মদ এখতিয়ার আরাফাতিএই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, পাহাড় ধসের সময় নিখোঁজ একজনের লাশ বৃহস্পতিবার  কাপ্তাই লেক থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। মাটির স্তূপের সঙ্গে লাশটি পানিতে পড়ে গিয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করছেন তারা। রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিস ও চট্টগ্রাম থেকে আসা ফায়ার সার্ভিসের ৬০ সদস্য মিলে এখনও উদ্ধারকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে পাহাড় ধস ও যোগাযোগ ব্যবস্থার জটিলতার সুযোগ নিয়ে কিছু ব্যবসায়ী রাঙামাটি শহরে নিত্যপণ্যে দাম বাড়িয়ে দিয়েছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে সেব্যাপারে কাজ শুরু করেছে জেলা প্রশাসন। ডিসি মানজারুল মান্নান বৃহস্পতিবার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের ৩০০ মিটার অংশ বন্ধ থাকায় বিকল্প পথে কীভাবে পণ্য আনা যায় এবং এর দাম কীভাবে নির্ধারণ করা যায় সেব্যাপারে শুক্রবার (১৬ জুন) সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এদিকে ধসে পড়া রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়ক আবার চালু করতে তিন-চার দিন লাগবে বলে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে। রাস্তা ঠিক না হওয়া পর্যন্ত কাপ্তাই হয়ে বোটে যোগাযোগ করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ