শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

নদীভাঙন ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে পিছিয়ে পড়ছে শিবসাপাড়ের মানুষ

খুলনা অফিস: অব্যাহত নদী ভাঙ্গন ও প্রতিনিয়ত প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে পিছিয়ে পড়ছে শিবসা পাড়ের মানুষগুলো। শিক্ষার অভাব থাকায় উন্নত জীবন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তারা। ওই এলাকার হাজার হাজার বিঘা জমি পতিত থাকার কারনে চাষাবাদও করতে পারছে না জমি মালিকরা। 

এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, এ এলাকার অধিকাংশ মানুষই দরিদ্র সীমার নিচে বসবাস করে। নদীর অব্যাহত ভাঙনে অনেকের জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এর ফলে নদী তীরেই ঝুপড়ি বেঁধে বসবাস করছে শতশত পরিবার।

কিন্তু সুবিধা বঞ্চিত এ পরিবারগুলোর সদস্যরা প্রতিনিয়ত নানামুখী সমস্যা নিয়ে দিনা যাপন করছে। হতভাগ্য এই সকল অসহায় পরিবারের সুবিধার্থে সরকার আজ পর্যন্ত বাস্তব কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। এই সকল পরিবারের সকলেই নিরক্ষর। জীবিকার তাগিদে প্রতি পরিবারে প্রায় সকলেই মাছ ধরার কাজে নিয়োজিত। তাদের শিক্ষা, সু-চিকিৎসার যেমন কোন ব্যবস্থা নেই, তেমনি বিদ্যুৎ সুবিধাও নেই। নাই কোন স্যানিটেশন ব্যবস্থাও। এদিকে, ভাঙন রোধেও এ পর্যন্ত সুষ্ঠু কোন ব্যবস্থা গৃহীত হয়নি। ফলে শিবসা তীরে আশ্রয় নেয়া পরিবারগুলোকে বছরে প্রায় দু’বার তাদের জায়গা পরিবর্তন করতে হয়।

একসময় যে পরিবারগুলোর ছিল বিস্তর জমি, ছিল গোলা ভরা ধান, পুকুর ছিল মাছে ভর্তি। সে সকল পরিবার আজ যাযাবর। আজ তারা অধিকার বঞ্চিত। বৈদ্যুতিক আলোই শুধু নয় শিক্ষার আলোই তাদের ঘরে পৌঁছেনি আজো। চিকিৎসার কোন ভালো ব্যবস্থা এখানে নেই। নেই কোন ভালো নলকূপ। স্যানিটেশন ব্যবস্থা যে কি, তারা তা’ আজো জানে না। সরেজমিন শিবসা তীরের মানুষের জীবনযাত্রা অবলোকন করতে গেলে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় এক বৃদ্ধ দীর্ঘশ^াস ছেড়ে বলেন, শিবসার এক পাড়ে সুন্দরবন অন্য পাড়ে নলিয়ান সুন্দরবনে বাস করে জন্তু-জানোয়ার ও অস্থায়ী বাসিন্দা। আর নলিয়ানে বাস করে স্বাধীন মানুষ। দুঃখজনক হলেও সত্য সরকার জন্তু-জানোয়ারের সুবিধার্থে বছরে বহু অর্থব্যয় করছে। কিন্তু নলিয়ানের শিবসা তীরের আমাদের মতো অসহায় ভাঙন কবলিত যাযাবর পরিবারগুলোর ভাগ্যের কোন পরিবর্তন অদ্যবধি ঘটেনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ