বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

ফেনী পৌর হকার্স মার্কেটের ফরমালিন পরীক্ষাগার বন্ধ

ফেনী সংবাদদাতা: ফেনী শহরের রেলগেইট এলাকায় অবস্থিত সুলতান মাহমুদ পৌর হকার্স মার্কেটে ফরমালিন পরীক্ষাগারটি বন্ধ হয়ে পড়ে আছে। ২০১৩ সালের ৩০ এপ্রিল ফরমানিল পরীক্ষাগার ভবনের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেছিলেন তৎকালীন পৌর মেয়র বর্তমান ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী। পৌরসভার অর্থায়নে নির্মিত পরীক্ষাগার ভবনের নির্মাণ কাজ ওই বছরেই শেষ হয়েছে। একই বছরের ২৮ মে ফরমালিন সেন্টারটি নিজাম উদ্দিন হাজারী প্রধান অতিথি হিসাবে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, উদ্বোধনের পর থেকে কিছুদিন চালুর পর ফরমানিল পরীক্ষাগারটি বন্ধ হয়ে যায়। ফলে ব্যবসায়ী ও ভোক্তাদের কোন কাজেই আসছে না ওই ফরমালিন পরীক্ষাগার। বর্তমানে এটি পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। শহরের অন্যতম বৃহৎ বাজারে ফরমানিল মুক্ত মাছ মাংস, শাকসবজি বিক্রির লক্ষ্যে প্রায় অর্ধকোটি টাকা ব্যায়ে ফরমানিল পরীক্ষাগারটি স্থাপন করা হয়েছিল। উদ্বোধনের পর থেকে গত ৪ বছর ধরে বন্ধ অবস্থায় পড়ে রয়েছে। যে কোন ভোক্তা মাছ ও যাবতীয় ফলমুল সহ পন্য সামগ্রী মাত্র ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে বিনামুল্যে পরীক্ষার সুযোগ দেওয়ার কথা থাকলেও এটি মুখ থুবড়ে পড়েছে। পৌরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের দুইজন স্টাফ দায়িত্ব পালনের কথা থাকলেও তা করছেনা।

সরেজমিন দেখা গেছে, পরীক্ষাগারের চার পাশ দখল করে রেখেছে স্থানীয় চা দোকানী সহ বিভিন্ন হকারেরা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন মাছ ব্যবসায়ী জানিয়েছে, ফরমালিন সেন্টারটি তৎকালীন পৌর মেয়র নিজাম হাজারী দায়িত্ব পালনের সময়ে নির্মাণ করা হয়েছিল। তিনি মেয়র থেকে ইস্তফা দিয়ে সংসদ সদস্য হওয়ায় ফরমালিন সেন্টারটি অভিভাবক শুন্য হয়ে পড়ে। ফরমালিন পরীক্ষার প্রয়োজনীয় যান্ত্রপাতি এবং লোকবলের অভাবে এটি বন্ধ রয়েছে বলে জানা যায়। সোমবার সরোয়ার আলম নামের এক ক্রেতা বেশ কিছু মাছ কিনেন। তিনি জানান, পরীক্ষাগারটি চালু থাকলে তার কেনা মাছগুলো পরীক্ষা করা যেত। কিন্তু এটি বন্ধ থাকায় মাছে ফরমালিন আছে কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়ে গেছে।

তিন চোর গ্রেফতার

সোনাগাজীতে মহিষ চুরির অভিযোগে তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় পুলিশ ৮টি মহিষ ্উদ্ধার করে। সোমবার সকালে উপজেলা ভোয়াগ গ্রাম থেকে তাদের আটক ও মহিষগুলো উদ্ধার করা হয়। 

এলাকাবাসী সূত্র জানায়, ওইদিন সকালে ৫-৬জন ব্যক্তি অজ্ঞাত স্থান থেকে চুরি করে ৭-৮টি মহিষ এনে মতিগঞ্জ ইউনিয়নের ভোয়াগ গ্রামের মাঈন উদ্দিনের বাড়িতে রাখে। এলাকায় কোথাও মহিষের খামার না থাকায় তাদের সন্দেহ হলে তারা পুলিশে খবর দেয়। সোনাগাজী মডেল থানার এসআই হারুনুর রশিদের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে মাঈন উদ্দিনসহ কয়েকজন ব্যক্তি পালানোর চেষ্টা করে। এসময় পুলিশ ধাওয়া করে মতিগঞ্জ ইউনিয়নের ভোয়াগ গ্রামের শহীদুল ইসলাম(৩৮), একই গ্রামের মাঈন উদ্দিন (৪৫) ও চর দরবেশ ইউনিয়নের চর সাহাভিকারী গ্রামের শাহ আলম (৪২) কে গ্রেফতার করে। তাদের দেয়া তথ্য মতে পুলিশ মাঈন উদ্দিনের বাড়ি থেকে ৬টি মহিষ এবং পাশ্ববর্তী একটি বাড়ি থেকে ২টি মহিষ ও ১টি গরু উদ্ধার করে।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মো. হুমায়ুন কবির জানান, আটককৃতরা এলাকার চিহ্নিত চোর ও গবাদিপশু পাচারকারী। তাদের বিরুদ্ধে থানায় মহিষ ও গরুচুরির অভিযোগে মামলার প্রস্তুতি চলছে। এখন পর্যন্ত উদ্ধারকৃত মহিষ ও গরুর মালিকানা সনাক্ত করা যায়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ