বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০
Online Edition

মানবজাতির জন্য কল্যাণ রয়েছে কুরআনে

গতকাল মঙ্গলবার সুপ্রিমকোর্ট বার মিলনায়তনে ইসলামিক ল-ইয়ার্স কাউন্সিল আয়োজিত ইফতার মাহফিলে বক্তব্য রাখেন বিচারপতি এ এফ এম আলী আজগর -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ ইসলামিক ল’ ইয়ার্স কাউন্সিল আয়োজিত ‘রমযানের তাৎপর্য ও আলোচনা’ শীর্ষক ইফতার মাহফিলে বক্তারা বলেছেন, কুরআন কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর জন্য নয়, সমগ্র মানবজাতির জন্য কুরআনে কল্যাণ রয়েছে। আমাদের সকলের উচিত কুরআনকে অনুসরণ করা, কুরআনের নির্দেশিত পথে চলা। 

গতকাল মঙ্গলবার বিকালে সুপ্রিম কোর্ট বার অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ ইসলামিক ল’ ইয়ার্স কাউন্সিলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিচারপতি এ.এফ.এম আলী আজগর। এতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদীন। আলোচনা পেশ করেন বাংলাদেশ ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড. মো. আবদুল মান্নান। বক্তব্য রাখেন ইসলামিক ল’ইয়ার্স কাউন্সিলের কেন্দ্রীয় কোষাধ্যক্ষ ও সুপ্রিম কোর্ট শাখার সভাপতি এডভোকেট জসিম উদ্দিন সরকার। উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট শাহ মো. খসরুজ্জামান, ঢাকা বার এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, এডভোকেট বোরহান উদ্দিন ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা খান।

বক্তব্য রাখেন সুপ্রিম কোর্ট শাখার সহ-সভাপতি এডভোকেট মো. গিয়াসউদ্দিন মিঠু ও এস এম কামালউদ্দিন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এডভোকেট মতিউর রহমান আকন্দ প্রমুখ। সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের সাবেক সহ-সম্পাদক এডভোকেট মো. সাইফুর রহমান অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

জয়নুল আবেদীন বলেন, রমযানে মাসে পবিত্র কুরআন নাজিল হয়েছে। কুরআন হলো এমন এক ধর্মগ্রন্থ যেখানে মানুষের জীবন ব্যবস্থার নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু আমরা কুরআনের নির্দেশিত পথে জীবনযাপন করিনা। দেখা যায় মুসলামানরাই অন্য ধর্মের আয়োজনে উপস্থিত থাকে, ঘুরাঘুরি করে তারা যদি নিজ ধর্মের প্রতি এতটা উৎসাহী হতো তাহলে মানুষের কল্যাণ হতো। তিনি বলেন, আজকে কুরআন পড়লে বলা হয় জঙ্গি আস্তানা পাওয়া গেছে। সবাই জানে কুরআন জঙ্গিবাদ সমর্থন করেনা। যারা এটা বলে তাদের এই বিষয়টি বুঝতে হবে। 

ড.মো.আবদুল মান্নান বলেন, ইসলামের পাঁচটি বুনিয়াদের (ভিত্তি) মধ্যে অন্যতম হলো রমযান। প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর জন্য সিয়াম বাধ্যতামূলত করা হয়েছে। রমযানের উদ্দেশ্য একটাই মানুষকে মুত্তাকী হিসেবে গড়ে তোলা। আর মুত্তাকী হতে হলে তাকওয়া অর্জন করতে হয়। তাকওয়া হলো খোদাভীতি। যে অন্যায় করলো, মিথ্যা বললো তার জন্য সিয়াম পালন করা অর্থহীন। যদি তাকওয়া অর্জন করা যায় তাহলে আল্লাহ এমন উৎস থেকে রিযিকের ব্যবস্থা করবেন যা সীমাহীন। আমাদের সর্বাবস্থায় কুরআনকে আঁকড়ে ধরতে হবে। 

সভাপতির বক্তব্যে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, আমরা ইসলামের মূল আদর্শ থেকে সরে যাচ্ছি। মুসলিম জাতি হিসেবে আমাদের মধ্যে বিভক্তি ও অনৈক্য বিরাজ করছে। আমরা অনৈক্যের বেড়াজালে আটকে আছি। জাতি হিসেবে যদি আমরা কল্যাণ চাই তাহলে এই অবস্থা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। ইসলামের আদর্শকে অনুসরণ করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ