সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০
Online Edition

সবুজ বিপ্লব ঘটাতে চায় আফ্রিকা

৩০ মে, খালিজ টাইমস : আফ্রিকা মহাদেশের দেশগুলোয় কৃষি কাজের মাধ্যমে গরিব মানুষ এবং অর্থনীতির চাকা সচল করার উপযুক্ত পরিবেশ আছে। জমিও আছে পর্যাপ্ত। সুবজ বিপ্লব ঘটানোর ক্ষেত্রে তারা ভারতকে মডেল হিসেবে নিয়েছে। ভারতেই মতোই তারা চাষাবাদ করে সাম্বলম্বী হতে চায়। তারা যদি এ কাজটি করতেই পারে তাহলে এ এলাকার ৪২ কোটি দারিদ্র মানুষের অবস্থার উন্নতি হবে। তারা দরিদ্রতার অভিশাপ থেকে মুক্তি পাবে।
আফ্রিকার ৬৫ শতাংশ জমি অনাবাদী হিসেবে পড়ে রয়েছে। এ পরিমাণ জমি থাকার পরও বিশ্বের মোট উৎপাদিত খাবারের মাত্র ১০ শতাংশ আসে আফ্রিকা থেকে।
আফ্রিকান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এএফডিবি) কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আফ্রিকার উন্নয়নের জন্য তারা চাষাবাদের দিকে লোকজনকে আগ্রহী করার চেষ্টা করছে। যুব সমাজ, গবেষক ও বেসরকারি খাতকে চাষাবাদকে নতুন একটি ব্যবসায়িক খাত হিসেবে দেখার অনুরোধ করেছে এএফডিবি। সবুজ বিপ্লব ঘটানোর জন্য এরই মধ্যে ভারতের সঙ্গে আফ্রিকা অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে চাষাবাদ করার উদ্যোগ নিয়েছে। সে অনুযায়ী কয়েকটি এলাকায় এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় অবকাঠামো, বিদ্যুৎ উৎপানের ব্যবস্থা, দক্ষ কর্মী ও স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থাও করেছে।
আগামী ১০ বছর এএফডিবি আফ্রিকার কৃষিখাতে দুই হাজার ৪০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে। আর এ খাত থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে আনুমানিক এক ট্রিলিয়ন ডলার আয় করা হবে।
এএফডিবির কৃষি ও কৃষি বিষয়ক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ছিজি ওজুকওয়া বলেন, উন্নয়নের জন্য সবুজ বিপ্লব ঘটনার অভিজ্ঞতা ভারতে আছে। কৃষিকাজ নিয়ে তাদের অনেক অভিজ্ঞতাও আছে। আফ্রিকায়ও যদি সবুজ বিপ্লব ঘটানো যায় তাহলে হয়তো এখান থেকেই আফ্রিকার দরিদ্রতা দূর করা সম্ভব হবে।
তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে বাড়তি হিসেবে রয়েছে ভারতের অভিজ্ঞতা। তাদের প্রযুক্তি ও বিশেষজ্ঞের সাহায্য পেলে আমরাও হয়তো আফ্রিকায় সবুজ বিপ্লব ঘটাতে পারবো। ভারতে সেচের সুবিধা ছিল। তারা দুধের খামার দিয়েও সাফল্য পেয়েছে। এছাড়া সৌর শক্তিকে কাজে লাগিয়েও সাফল্য পেয়েছে। আফ্রিকার কোম্পানিগুলো ভারতের কৃষি ব্যবস্থা অনুরূপ কিছু করতে পারে। এ মাধ্যমে আফ্রিকায় কৃষি বিপ্লব ঘটাতে পারে। এ মাধ্যমে ৪২ কোটি দরিদ্র মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হতে পারে। কারণ এসব মানুষের দৈনিক আয় ১.২৫ ডলারেরও কম।’
ভারতের বেশ কিছু কোম্পানি আফ্রিকায় টেলিযোগাযোগ খাত, হাইড্রোকার্বন অনুসন্ধান, তথ্য পযুক্তি, শিক্ষা, পানি শোধনাগার, পেট্রোলিয়াম সংশোধন, কেমিক্যালস, ফার্মাসিটিউক্যাল, কয়লা, অটোমোবাইলসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করেছে। খাদ্য সরবরাহের চুক্তিও আছে ভারতের সঙ্গে। এবার সেই ভারতই আফ্রিকাকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে সাহায্য করবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ