মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

রোজা পালনে তৈলাক্ত খারার পরিহার করার পরামর্শ

স্টাফ রিপোর্টার : গরমে রোজা পালনে ভাজাপোড়া বা তৈলাক্ত খারার পরিহার করে প্রচুর পরিমাণ পানি পান ও ফল দিয়ে ইফতার করার পরামর্শ দিয়েছেন স্বাস্থ্যবিদরা। একই সঙ্গে, রোজায় সুস্থ থাকতে মুখরোচক খাবারের ঝোক কমিয়ে স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করতে হবে। নতুবা অতিরিক্ত গরমে অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে।

 গতকাল বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘বাংলাদেশ ফুড সেফটিওয়ার্ক (বিএফএসএন)’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় বক্তারা এ পরামর্শ দেন। কনজুমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমানের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ (বিএফএসএ) চেয়ারম্যান মাহফুজুল হক। এছাড়া জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) ফুড সেফটি প্রোগামের সিনিয়র ন্যাশনাল অ্যাডভাইজার প্রফেসর ডা. শাহ মনির হোসেন, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সাধারণ সম্পাদক ড. আব্দুল মতিন উপস্থিত ছিলেন।

সভায় মাহফুজুল হক বলেন, কারও একার পক্ষে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব না। তবে খাদ্য নিয়ে আমাদের মধ্যে কিছু নেতিবাচক ধারণা তৈরি হয়েছে। এগুলো দূর করতে হবে। প্রাকৃতিকভাবেই খাবারে ফলের মধ্যে ফরমালিন থাকে। এটা জানতে হবে। তবে মাত্রাতিরিক্ত ফরমালিন ক্ষতিকর সেটা সত্যি, এজন্য কৃষক পর্যায়ে সচেতনতা বাড়াতে হবে।

প্রফেসর ডা. শাহ মনির হোসেন বলেন, ভেজাল খাবারের বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। এখন আধুনিক খাবারের নামে বাজারে যা বিক্রি হচ্ছে তা পুরোপুরি স্বাস্থ্যকর নয়। এছাড়া ফুটপাতের খাবারেও অতিরিক্ত মাত্রায় চর্বি থাকে। যা স্বাস্থ্যের জন্য মোটেও ভালো নয়।

তিনি বলেন, প্রচন্ড গরমের মধ্যে পবিত্র রমযান শুরু হচ্ছে। রোজদারকে মনে রখেতে হবে, সুস্থতার সঙ্গে রোজা রাখতে হলে ফুটপাতের মুখরোচক খাবার পরিহার করতে হবে। ইফতারের সময় প্রচুর পানি পান করতে হবে। আর ফল দিয়ে ইফতার সারতে হবে।

গোলাম রহমান বলেন, পবিত্র রমযান আত্মসংযমের মাস হলেও অনেকে ভোগের পরিমাণ বাড়িয়ে দেন। এজন্য অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। রমযানে ইফতার গ্রহণের সময় স্বাস্থ্যকর খারাবের প্রতি বেশি আগ্রহ দেখাতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ