সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ভারত উজানের সবগুলো নদীতে বাঁধ দিয়ে বাংলাদেশকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে 

রাজশাহী অফিস : ঐতিহাসিক ‘ফারাক্কা লং মার্চ’-এর ৪১তম বার্ষিকী স্মরণে গতকাল মঙ্গলবার রাজশাহীতে এক গণজমায়েতের আয়োজন করা হয়। এতে বক্তারা বলেন, ভারত উজানের সবগুলো নদীতে বাঁধ দিয়ে বাংলাদেশকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। তারা না প্রতিবেশীসুলভ আচরণ করছে আর না আন্তর্জাতিক রীতি-নীতির কোন তোয়াক্কা করছে। 

বিকেলে নগরীর বড়কুঠি পদ্মা ঘাট চত্বরে ফারাক্কা লং মার্চ দিবস উদযাপন কমিটি এই কর্মসূচির আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কবি, গবেষক ও কলামিস্ট ফরহাদ মজহার। বিশেষ অতিথি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক প্রফেসর ড. আবুল কালাম আজাদ, প্রফেসর ড. এম. সায়েদুর রহমান ও প্রফেসর ড. মো. ফজলুল হক। প্রধান বক্তা ছিলেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কবি আবদুল হাই শিকদার। সভাপতিত্ব করেন ফারাক্কা লং মার্চ দিবস উদযাপন কমিটির সমন্বয়ক এবং নদী ও পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মো. এনামুল হক। এউপলক্ষে পদ্মার চরে ব্যতিক্রমী কলসি মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

বক্তারা বলেন, ভারতের পানি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বে ১৯৭৬ সালের ১৬ মে ঐতিহাসিক ‘ফারাক্কা লং মার্চ’ অনুষ্ঠিত হয়। সেদিন বাংলাদেশের নদীসমূহের যে পরিস্থিতি ছিল আজ চার দশক পরে তা আরো ভয়াবহ অবস্থা দাঁড়িয়েছে। ফারাক্কার প্রতিক্রিয়া ও প্রভাবে বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের গঙ্গা-পদ্মা ছাড়াও অন্যান্য ছোট ও মাঝারি ধরনের নদ-নদী শুকিয়ে গেছে। নদীর তীরবর্তী বিস্তীর্ণ এলাকা এখন অনেকটাই মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে। এর ফলে এক ভয়াবহ পরিবেশ বিপর্যয় অতি আসন্ন। শুধু গঙ্গা নয়- তিস্তা, মহানন্দা, বারাক নদীতে বাঁধ এবং আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্পের মাধ্যমে একতরফা পানি প্রত্যাহার করা হচ্ছে। ভারত বলে আসছে যে, বাংলাদেশের ক্ষতি হয়- নদীকেন্দ্রিক এমন কোন প্রকল্প তারা বাস্তবায়ন করবে না। কিন্তু পরিস্থিতি সম্পূর্ণ বিপরীত। ভারত এই আচরণ পরিবর্তন না করলে মাওলানা ভাসানীর মতো এদেশের মানুষ আবারো গর্জে উঠতে পিছপা হবে না। কমিটির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট হোসেন আলী পেয়ারার পরিচলনায় সমাবেশে অন্যদের বক্তব্য দেন, হেরিটেজ রাজশাহীর সভাপতি নদী গবেষক মাহবুব সিদ্দিকী, প্রবীণ রাজনীতিক মুস্তাফিজুর রহমান খান আলম, নাগরিক ভাবনার আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মোতাসিম বিল্লাহ, ব্যবসায়ী নেতা হারুনুর রশিদ, আন্তর্জাতিক ফারাক্কা কমিটির সদস্য সচিব ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদ প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ