শনিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

বড়লেখায় ক্ষুদে তিন বিজ্ঞানীর উদ্ভাবন

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) সংবাদতাতা: মৌলভীবাজারের বড়লেখার পিসি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের তিন শিক্ষার্থীর উদ্ভাবিত তিনটি প্রকল্প সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। এবারের বিজ্ঞান মেলায় তাদের উদ্ভাবিত তিনটি প্রকল্প প্রদর্শিত করে মেলায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে এই তিন ক্ষুদে বিজ্ঞানীরা প্রথমও হয়েছে। দুইদিন ব্যাপী এই মেলায় উপজেলার মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের অসংখ্য ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। গত বৃহস্পতিবার (০৪ মে) মেলার শেষ দিন ছিল। বুধবার (০৩ মে) উপজেলা পরিষদ হলরুমে প্রধান অতিথি হিসেবে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের উদ্বোধন করেন স্থানীয় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর। এই মেলায় অংশ নেয়া ১৩টি স্টলের মধ্যে নিজেদের উদ্ভাবিত বিভিন্ন প্রকল্প প্রদর্শিত করেছে ক্ষুদে বিজ্ঞানীরা। এরমধ্যে কেউ বায়ু বিদ্যুৎ কিংবা ওয়াটার রকেট, কেউবা ভূমিকম্প সতর্কীকরণ সংকেত (শব্দ) বা ভূমিকম্প সতর্কীকরণ সংকেত (আলো), কেউ আবার হাইগ্রোমিটার বা ওয়াটার এলার্ম, কেউ কেউ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় নৌকার বিপদ সংকেত এবং লেজার সিকিউরিটি সিস্টেম উদ্ভাবন করেছে। তবে দুইদিন ব্যাপী এই মেলার শেষ দিন বৃহস্পতিবার (০৪ মে) বড়লেখা পিসি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর বিজ্ঞান শাখার শিক্ষার্থী তাওহিদ মনোয়ার বায়ু বিদ্যুৎ, প্রান্ত সরকার ওয়াটার রকেট ও নবম শ্রেণীর শুভ্র কু-সহ ৪ জনের দলীয় গ্রুপ চোর ধরার জন্য লেজার সিকিউরিটি সিস্টেম প্রথম হয়েছে। কথা হয় বায়ু বিদ্যুৎ উদ্ভাবক তাওহিদ মনোয়ারের সঙ্গে। সে জানায়, যান্ত্রিক শক্তি ও চৌম্বক শক্তির সমন্বয়ে তড়িৎ শক্তি বা বিদুৎ শক্তি উৎপন্ন হয়। কিন্তু যান্ত্রিক শক্তি উৎপন্ন করতে জ্বালানির প্রয়োজন হয়। এ ক্ষেত্রে আমি যান্ত্রিক শক্তি ও চৌম্বক শক্তির সমন্বয় ঘটিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে জ্বালানী হিসাবে প্রকৃতি থেকে যায়ু ব্যবহার করেছি এবং এর থেকে আমি বিদ্যুৎ শক্তির উৎপন্ন করেছি। এতে আমার প্রয়োজন হয়েছে একটি ডায়নোমো, টারবাইন ও প্রাকৃতিক বায়ু। ক্ষুদে বিজ্ঞানী তাওহিদ বলে, বায়ুবিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষেত্রে আমাকে কোন ধরনের জ্বালানী ব্যবহার করতে হয়নি। কিন্তু আমি বিদ্যুৎ শক্তি তথা এক প্রকার জ্বালানী তৈরি করতে সক্ষম হয়েছি। এ ব্যাপারে বড়লেখা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সমীর কান্তি দেব বলেন, ‘নিয়মিত এভাবে বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত হলে শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশে অনন্য অবদান রাখবে। আর শিক্ষার্থীদের এসব উদ্ভাবন যন্ত্র বাস্তব ক্ষেত্রে প্রয়োগ বৃদ্ধি পাবে। মেলার সামাপনী দিনে স্কুল ভিত্তিক প্রকল্পে বড়লেখা পিসি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্ষুদে বিজ্ঞানীরা প্রথম হয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে পরে তাদের পুরস্কার তুলে দেয়া হবে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ