শনিবার ৩০ মে ২০২০
Online Edition

গরমে মার্সেল ফ্রিজের চাহিদা বাড়ছে

বাড়ছে গরম। এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মার্সেল ফ্রিজের চাহিদা ও বিক্রি। প্রতিদিনই প্রচুর সংখ্যক গ্রাহক ভিড় করছেন মার্সেলের শোরুমগুলোতে। কিনছেন সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও আকর্ষণীয় ডিজাইনে তৈরি ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ খ্যাত মার্সেল ফ্রিজ। 

মার্সেল বিপণন বিভাগের লজিস্টিক্স মনিটরিং প্রধান উজ্জ্বল কুমার বড়–য়া জানান, সাধারণত গরমকালে বাংলাদেশে রেফ্রিজারেটর বা ফ্রিজের চাহিদা ব্যাপক বেড়ে যায়। তবে এবছর মার্সেল ফ্রিজের চাহিদা তুলনামূলক বেশি। তিনি বলেন, সর্বাধুনিক প্রযুক্তিতে উচ্চ গুণগতমান বজায় রেখে বাংলাদেশেই তৈরি হচ্ছে মার্সেল ফ্রিজ। মার্সেল দামেও সাশ্রয়ী। আকর্ষণীয় ডিজাইন ও কালার এবং দ্রুত বিক্রয়োত্তর সেবায় গ্রাহকরা সন্তুষ্ট। ফলে উল্লেখযোগ্যহারে বেড়েছে মার্সেল ফ্রিজের চাহিদা। তার মতে, সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব আর৬০০এ রেফ্রিজারেন্ট গ্যাসযুক্ত বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইন্টেলিজেন্ট ইনভার্টার প্রযুক্তির নন ফ্রস্ট ফ্রিজ গ্রাহক চাহিদা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে। 

কর্তৃপক্ষ জানায়, গত বছর মার্সেল ফ্রিজে ৪৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। এবছর স্থানীয় বাজারে ২ লাখ ফ্রিজ বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা তাদের। যা গত বছরের চেয়ে প্রায় ৪২ শতাংশ বেশি। আর লক্ষ্যমাত্রা পূরণে বাজারে ৩০ টি মডেলের ফ্রস্ট ও নন-ফ্রস্ট ফ্রিজ রয়েছে মার্সেল ব্র্য্রান্ডের। এর মধ্যে নতুন মডেলের ২৭.৫ সিএফটি বা ৪৩০ লিটারের নন-ফ্রস্ট ফ্রিজ বাজারে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। আপকামিং মডেলের তালিকায় রয়েছে ১১.৫ সিএফটি বা ২১৭ লিটারের নন-ফ্রস্ট রেফ্রিজারেটরসহ ৫.৫ সিএফটি বা ১০৭ লিটারের ব্যাচেলর ফ্রিজসহ টেম্পারড গ্লাসের রেফ্রিজারেটর। 

সূত্রমতে, চলতি বছর সারা দেশে মার্সেল ফ্রিজের বিক্রি ব্যাপক বেড়েছে। ২০১৫ সালের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি-এপ্রিল) তুলনায় চলতি বছরের একই সময়ে প্রায় ৪৭ শতাংশ বেশি ফ্রিজ বিক্রি হয়েছে। আর চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের তুলনায় মার্চে বিক্রি বেড়েছে প্রায় ১৭০ শতাংশ। মূলত, গরমকে কেন্দ্র করেই মার্চ মাসে ফ্রিজ বিক্রিতে এতো প্রবৃদ্ধি। আগামী মাসগুলোতে বিক্রির পরিমাণ আরো বাড়বে বলে তারা আশাবাদি।  

মার্সেল প্রকৌশলীরা জানান, মার্সেলের ইন্টেলিজেন্ট ইনভার্টার প্রযুক্তির নন-ফ্রস্ট ফ্রিজ সাধারণ ফ্রিজের তুলনায় প্রায় ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। এই ফ্রিজ তুলনামূলক শব্দহীন এবং ভিতরে বরফ জমে না। মার্সেল ফ্রিজ আরএন্ডডি (গবেষণা ও উন্নয়ন) বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন, নিয়মিত গবেষণার মাধ্যমে মার্সেল ফ্রিজে যুক্ত হচ্ছে বিশ্বের লেটেস্ট সব প্রযুক্তি। রয়েছে ন্যানো হেলথ কেয়ার টেকনোলজির ব্যবহার। আন্তর্জাতিক মান যাচাইকারি সংস্থা নুসদাত ইউনিভার্সাল টেস্টিং ল্যাব থেকে প্রতিটি ফ্রিজের মান নিশ্চিত হয়েই বাজারে ছাড়ছে মার্সেল। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ