রবিবার ০৯ আগস্ট ২০২০
Online Edition

পাঁচবিবিতে কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির কর্মচারীদের ৬ মাস ধরে বেতন বন্ধ ॥ মানবেতর জীবনযাপন

পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) সংবাদদাতা: জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার উৎকোচের দাবি পূরণ না হওয়ায় ৬ মাস ধরে কর্মচারীদের বেতন বন্ধ। উপজেলা ও জেলা কর্মকর্তার প্রত্যাহার চেয়ে বৃহস্পতিবার বেলা ১২ টায় নিজস্ব কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি লিমিটেড (ইউসিসিএ লিঃ) এর সভাপতি প্রভাষক নিলুফা ইয়াসমিন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, উপ-পরিচালক জয়পুরহাট ও পাঁচবিবি উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার যোগসাজসের ফলে গত নভেম্বর থেকে কর্মচারীদের বেতন ভাতা বন্ধ রয়েছে।
সমবায় উন্নয়ন তহবিল সিডিএফ উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তাকে বেতন দেওয়ার জন্য আমি নিজে পত্র প্রেরণ ও একাধিকবার বললেও তিনি আজ অবদি কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি।
গত ২৪ এপ্রিল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় কর্মচারীদের বেতন ভাতা ও সিডিএফ প্রদানসহ গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিদ্ধান্তগুলি রেজুলেশন খাতায় না তুলে ঐ কর্মকর্তা নিজের হেফাজতে রেখে তালবাহনা করে কালক্ষেপণ করতে থাকে।
২৭ এপ্রিল সকাল ১০ টায় আমি নিজে কর্মকর্তার নিকট থেকে রেজুলেশন খাতা চাইলে খাতা না দিয়ে আমার সঙ্গে তিনি অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। রেজুলেশন খাতার বিষয়টি উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা লুৎফর রহমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালে, তিনি আমাকে খাতাটি দিতে বলেন।এমতাবস্থায় আমি বেতন ভাতাসহ গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলি রেজুলেশন খাতায় লিখে রেজুলেশনসহ যাবতীয় ঘটনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করেছি।
তিনি আরো বলেন, দুঃখের বিষয় হচ্ছে কর্মচারীরা চাকরি করে বেতন-ভাতার আশায়। তাদের সামান্য বেতনের উপর নির্ভর করে পরিবার-পরিজন। সেই বেতন ভাতা ৬ মাস অবদি বন্ধ রাখার মত ঘটনা ঘটে চরম অমানবিক কাজ করেছে। একই সঙ্গে সভাপতি হিসেবে আমার সঙ্গে অসৌজন্য মূলক আচরণ করে ক্ষমতার অপব্যবহারের প্রমাণ দিয়েছেন তিনি। আমার দায়মুক্ত তহবিল থাকার পরেও আমি কোন কর্মচারীদের বেতন দিতে পারছিনা শুধুমাত্র ঐ কর্মকর্তার বৈরী আচরণের জন্য। এ ধরণের কর্মকান্ড করা ও এই উপজেলা কর্মকর্তাকে সবক্ষেত্রে জেলা কর্মকর্তা সমর্থন দেয়ার জন্য আমি উভয় কর্মকর্তার প্রত্যাহার দাবি করছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ