ঢাকা, সোমবার 21 September 2020, ৬ আশ্বিন ১৪২৭, ৩ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

কোরীয় উপদ্বীপে পরমাণু অস্ত্রবাহী মার্কিন ডুবোজাহাজ

অনলাইন ডেস্ক: কোরীয় উপদ্বীপে দক্ষিণ কোরিয়ার জলসীমানায় পৌঁছেছে যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেপণাস্ত্রবাহী ডুবোজাহাজ।

পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে ডুবোজাহাজ ‘ইউএসএস মিশিগান’ আজ মঙ্গলবার সকালে দক্ষিণ কোরিয়ার জলসীমানায় ঢোকে বলে জানিয়েছে বিবিসি। এই ডুবোজাহাজ কোরীয় উপদ্বীপে অবস্থান করা মার্কিন বিমানবাহী রণতরী কার্ল ভিনসনের সঙ্গে যোগ দেবে।

ডুবোজাহাজ ইউএসএস মিশিগানে পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র ছাড়াও ১৫৪টি টমাহক ক্ষেপণাস্ত্র, ৬০ জন বিশেষ প্রশিক্ষিত সেনা এবং কয়েকটি ছোট আকারের ডুবোজাহাজ রয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে, আজ উত্তর কোরিয়ায় পালিত হচ্ছে দেশটির সেনাবাহিনীর ৮৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। আর এই দিনে দেশটি ঐতিহ্য অক্ষুণ্ণ রেখে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাবে বলে আশঙ্কা করছে চীন। কারণ, বেশ কয়েক বছর ধরে সেনাবাহিনীর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

কিন্তু চলতি বছরে যুক্তরাষ্ট্রে ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মকাণ্ডকে উসকানিমূলক আখ্যা দিয়ে এই কাজ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছিল বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশটি। কিন্তু উত্তর কোরিয়া যুক্তরাষ্ট্রের ‘সাবধানবাণী’ থোড়াই কেয়ার করে নিজেদের পারমাণবিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে গেছে। এবার মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্রবাহী যুদ্ধজাহাজের উপস্থিতিতে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালালে যুদ্ধ বেধে যেতে পারে বলে আশঙ্কা অনেকেরই।

বেশ কিছুদিন ধরেই যুক্তরাষ্ট্র-উত্তর কোরিয়া উত্তপ্ত সম্পর্কের মধ্যে এই ডুবোজাহাজের অবস্থান ওই অঞ্চলে নতুন করে উত্তেজনা তৈরি করবে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এ পরিস্থিতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ফোন করেছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থার বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, জাপান ও দুই কোরিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করে সংযত থাকার আহ্বান জানিয়েছে চীন।

বিবিসি জানায়, ওই অঞ্চলে যুদ্ধের আশঙ্কার পরিপ্রেক্ষিতে এক সপ্তাহে এ নিয়ে দুবার ট্রাম্পকে ফোন করেছেন শি জিনপিং। যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় গত সোমবার সকালের এই কথোপকথন শুধু উত্তর কোরিয়াই নয়, গোটা কোরীয় উপদ্বীপকেই পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করার ওপর গুরুত্ব দেন শি জিনপিং।

এর আগে হামলা চালিয়ে মার্কিন রণতরী ডুবিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছিল উত্তর কোরিয়া। গত রোববার দেশটির ক্ষমতাসীন দল ওয়ার্কার্স পার্টির নিয়ন্ত্রণাধীন সংবাদপত্র রোডং সিনমুন সতর্ক করে বলেছে, মার্কিন রণতরী ইউএসএস কার্ল ভিনসনকে ডুবিয়ে দিতে একটি হামলায়ই যথেষ্ট।

মার্কিন ওই রণতরীকে ‘পশুর’ সঙ্গে তুলনা করে সংবাদপত্রটি বলছে, ‘আমাদের সামরিক শক্তির আসল মহড়া হবে এই হামলার মধ্য দিয়ে।’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রণতরী ইউএসএস কার্ল ভিনসনকে কোরীয় উপদ্বীপে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ধারণা করা হচ্ছে, কার্ল ভিনসন এ সপ্তাহের মধ্যেই কোরীয় উপদ্বীপে পৌঁছাবে।

রোডং সিনমুনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘আমাদের বিপ্লবী বাহিনী যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। তারা একক হামলা চালিয়ে পারমাণবিক অস্ত্রবাহী মার্কিন রণতরী ডুবিয়ে দিতেও প্রস্তুত রয়েছে।’

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের এশিয়া সফরের পর গত সপ্তাহে সিনমুন জানায়, যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়ার সবকিছু পর্যবেক্ষণ করছে।

রোববার ফিলিপাইন সাগরে মার্কিন রণতরীর সঙ্গে জাপানের নৌবাহিনী যৌথ মহড়ায় অংশ নেয়।

এর আগে গত ৮ এপ্রিল পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরে কোরীয় উপদ্বীপের দিকে পাঠানো হয় যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস কার্ল ভিনসন। উত্তর কোরিয়ায় উসকানিমূলক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জবাব দিতেই ওই যুদ্ধজাহাজ সেখানে যাচ্ছে বলে জানিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র।

এর একদিন আগেই উত্তর কোরিয়া একটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালায়। তবে ওই ক্ষেপণাস্ত্র আকাশেই বিস্ফোরিত হয় বলে দাবি করে যুক্তরাষ্ট্র।-এনটিভিবিডি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ