ঢাকা, মঙ্গলবার 22 September 2020, ৭ আশ্বিন ১৪২৭, ৪ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

পাথর কেটে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের প্রথম জাহাজ টানেল

অনলাইন ডেস্ক: বিশ্বের প্রথম জাহাজের টানেল তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে নরওয়ে। পাথরঘেরা একটি উপদ্বীপে এই টানেল গড়ার পরিকল্পনা করেছে দেশটি।

স্টাড উপদ্বীপে ১৭০০ মিটার দীর্ঘ, ৩৬ মিটার চওড়া ও ৪৯ মিটার উঁচু এই টানেলটি দিয়ে পণ্য ও যাত্রীবাহী দুই ধরনের জাহাজ চলাচল করতে পারবে।

স্টাডহ্যাভেট সাগরের উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে প্রায় সময়ই সব জাহাজকে লড়তে হয়। বৈরি আবহাওয়া, উত্তাল ঢেউ, তীব্র বাতাসে জাহাজ চলাচলে যে বিঘ্ন ঘটে, সে সমস্যা নিরসনে নওয়েজিয়ান কোস্টাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এই টানেল নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে করে জাহাজ চলাচলে নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে বলে আশা করছে কর্তৃপক্ষ।

দেশটির মোলডেফজোরডেন এলাকায় টানেলের দক্ষিণ প্রবেশপথ তৈরি করা হবে। প্রায় তিন -চার বছর সময় লাগবে টানেলটি তৈরিতে। ব্যয় হবে ২ দশমিক ৭ বিলিয়ন ক্রোনার বা ৩১৪ মিলিয়ন ডলার। টানেলটি গড়ে তোলা হবে বিশাল ৮ মিলিয়ন টন ওজনের একটি পাথরকে দুই ভাগ করে।

বিশ্বের কয়েকটি দেশে এর আগে সমুদ্র যান চলাচলের জন্য খাল বা ছোট পথ তৈরি করা হলেও একটি বিশাল পাথরের মধ্য দিয়ে সাড়ে ১৪ হাজার মেট্রিক টন ওজনের জাহাজ চলাচলের পথ তৈরি হতে চলেছে প্রথমবারের মতো। প্রতি ঘণ্টায় এই টানেলের মধ্য দিয়ে পাঁচটি জাহাজ চলাচল করতে পারবে।

যাত্রীবাহী জাহাজকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে, তবে পণ্যবাহী জাহাজও টানেলের ভেতর দিয়ে যাতায়াত করতে পারবে। আর ২৩০ ফুটের চেয়ে ছোট নৌযানগুলো ওই টানেলের ভেতর দিয়ে গেলে কোনো টোল নেওয়া হবে না। টানেলের ভেতর দুটি জাহাজের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঠেকাতে থাকবে ট্রাফিক লাইট।

আগামী ২০১৯ সালে নির্মাণ কাজ শুরু হবে। ২০২৩ সালে স্টাড শিপ টানেলটি উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ